চিন নিয়ে এলো নতুন এক পদ্ধতির করোনা টিকা

Corona Virus

নাসাল স্প্রের মাধ্যমে করোনা ভাইরাসের টিকা-এর কথা ভাবছে চিন। এই নাসাল স্প্রে ভ্যাকসিনের পরীক্ষায় তারা সিলমোহর দিয়েছে। দেশের সরকারি সংবাদ মাধ্যম জানিয়েছে। এই নাসাল স্প্রের প্রথম পর্বের পরীক্ষা শুরু হতে পারে নভেম্বরে। এখন ১০০ জন স্বেচ্ছাসেবককে বেছে নেওয়ার কাজ চলছে। এই প্রথম এ ধরণের টিকা আনার চেষ্টা চলছে, এই পরীক্ষায় সম্মতি দিয়েছে চিনের ন্যাশনাল মেডিক্যাল প্রডাক্টস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন।

আরও পড়ুনঃ কমবে মেদ ও সাথে জটিল রোগ, রোজ খান এই জিনিসটি

এই টিকা তৈরীতে যোগ দেন, হংকং বিশ্ববিদ্যালয়, জিয়ামেন বিশ্ববিদ্যালয় এবং বেজিং ওয়ানতাই বায়োলজিক্যাল ফার্মেসির গবেষকরা। হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক ইউয়েন কোক উয়াং বলেছেন, জীবাণু যাতে শ্বাসপ্রশ্বাসের মাধ্যমে শরীরে না ঢুকতে পারে, সেদিকে লক্ষ্য রেখে প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেবে এই টিকা।

তাঁদের দাবি, এই টিকা করোনা ও সঙ্গে ইনফ্লুয়েঞ্জা থেকেও নিরাপত্তা দেবে, এইচ১এন১, এইচ৩এন২ ও বি ইনফ্লুয়েঞ্জা ভাইরাসকে রোধ করবে এই টিকা। তাঁরা জানান। এই টিকার তিনটি ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ হতে অন্তত আরও ১ বছর লাগবে।

আরও পড়ুনঃ চিনের বিরুদ্ধে এবার কঠোর পদক্ষেপ আমেরিকার

বন্ধ গ্লোবাল ট্রায়াল, তবে ভারত কী চালাতে পারবে ট্রায়াল!

corona vaccine will be made in three months

নয়াদিল্লিঃ প্রতিষেধক নেওয়ার সময়ে এক ব্রিটিশ স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। বুধবার ব্রিটেন হঠাৎই বন্ধ করে দেন অ্যাস্ট্রোজেনেকার তৃতীয় ট্রায়াল। বলা হয়, গ্লোবাল ট্রায়ালই স্থগিত করা হচ্ছে। এমনকি পরের ধাপে শুরু হওয়া বৃহত্তম জন গোষ্ঠীর মধ্যে চলা ট্রায়ালও বন্ধ হচ্ছে। তবে এই ভ্যাকসিন নেওয়ায় স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে ঠিক কি ধরণের প্রতিক্রিয়া হয়েছে সেটা ভেঙ্গে বলেনি অ্যাস্ট্রোজেনেকা।

আরও পড়ুনঃ শব্দের থেকে ৬ গুণ গতির মিসাইল বানিয়ে বিশ্বের দরবারে চতুর্থ এখন ভারত

কিন্তু এই একই ভ্যাকসিনের ভারতে চলা ট্রায়াল এখনই বন্ধ করছেনা সিরাম ইন্সটিটিউট অফ ইন্ডিয়া। বুধবার নিজেদের বিবৃতিতে সিরাম ইন্সটিটিউট লিখেছে, “আমরা ব্রিটিশ ট্রায়ালের বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে পারবনা। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হচ্ছে । খুব শিগগিরিই নতুন করে শুরু হবে ট্রায়াল আশা করা যায়। এবং ভারতীয় ট্রায়ালে এখনও পর্যন্ত কোনও বাধার সম্মুখীন হতে হয়নি, ফলে এই ট্রায়াল চলবে।”

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন কী পরিবর্তন আসতে চলেছে মেট্রো পরিষেবায়!

১ নভেম্বরেই কি আমেরিকার বাজারে আসছে করোনা ভ্যাকসিন! জেনে নিন

Covaxin trial

ওয়াশিংটনঃ ১ নভেম্বরেই কি আমেরিকার বাজারে চলে আসবে করোনা ভ্যাকসিন? ট্রাম্প প্রশাসনের এক নির্দেশিকাকে ঘিরে জোরালো হয়েছে এই জল্পনা।

ওই নির্দেশিকায় আমেরিকার সবকটি প্রদেশকে বলা হয়েছে, নভেম্বরের ১ তারিখ থেকে করোনা ভ্যাকসিন সরবরাহ ও বন্টনের জন্য তৈরী থাকতে। মার্কিন ফুড অ্যান্ড, ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ইঙ্গিত দিয়েছে যে, ট্রায়াল পর্ব শেষ হওয়ার আগেই জরুরি ভিত্তিতে বাজারে ভ্যাকসিন আনার অনুমতি দেওয়া হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ শুধুমাত্র গরম জলেই ১২ কেজি পর্যন্তও ওজোন কমান!

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)-এর অধিকর্তা রবার্ট রেডফিল্ড গত ২৭ তারিখ একটি চিঠির মাধ্যমে ভ্যাকসিন বন্টন কেন্দ্রের আবেদনপত্র চেয়ে সকলের কাছে আহ্বান জানান।

প্রথম কাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে! ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, জরুরি পণ্যের সঙ্গে যুক্ত কর্মী, নিরাপত্তাকর্মী, প্রবীণ নাগরিক ও বিপদসীমায় থাকা মানুষজন এদের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

আরও পড়ুনঃ মোবাইল পরিষেবার খরচ বাড়তে চলেছে, ইঙ্গিত দিলেন সুনীল মিত্তল

বড় সুখবর! স্পুটনিক ভ্যাকসিন নিয়ে ভারত-রাশিয়া আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ

successful test of covid-19 in america vaccine will be available at the end of year

জল্পনার অবসান ঘটলো। স্পুটনিক ভ্যাকসিন নিয়ে রাশিয়া-ভারতের আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ শুরু হল। সুত্রের খবর, মঙ্গলবার সকালেই রাশিয়ান প্রতিনিধি ভারত সরকারের সঙ্গে রাশিয়ার কোভিড ভ্যাকসিন স্পুটনিকের তথ্য নিয়ে আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ স্থাপন করেছে।

কয়েকদিন ধরেই মস্কোর ভারতীয় দূতাবাসের তরফে Gamaleya Research Institute ও Russian Defence Ministry-এর কথাবার্তা চালানো হচ্ছিল এই ভ্যাকসিন নিয়ে। ট্রায়াল ও কার্যকারিতা সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হয়েছিল।

আইসিএমআর ও বায়োটেকনোলজি ডিপার্টমেন্টের তরফেও তথ্য চাওয়া হয় ভ্যাকসিনটির সম্পর্কে। সুত্রের খবর সেই তথ্য এদিন বিনিময় হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ করোনা অতিমারীর শেষ কবে, জানালো হু

রাশিয়া বেশ কিছুদিন ধরে দাবি করছিল, যে দেশগুলিকে রাশিয়া ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে ভারতও।

করোনার ভ্যাকসিন কবে আসছে এই নিয়ে যখন সারা বিশ্ব দুশ্চিন্তায়, তখন বাজিমাত করলো রাশিয়া। ১১ অগাস্ট মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জানান, এই ভ্যাকসিনকে তাঁর স্বাস্থ্যমন্ত্রক অনুমোদন দিয়েছে। এই অনুমোদন ভ্যাকসিনটি প্রথম দেওয়া হয় রুশ প্রেসিডন্টের মেয়ের দেহে।

আরও পড়ুনঃ মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এল শিব লিঙ্গ, মহাদেবের দর্শনে নেমেছে মানুষের ঢল

করোনার ভ্যাকসিন কবে আসতে পারে, জানিয়ে দিল হু

Corona Vaccine

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরী কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনের প্রথম পর্যায়ের পরীক্ষায় সাফল্যের পর গোটা বিশ্বে করোনার হাত থেকে মুক্তি পাওয়ার একটি আশা জেগে উঠেছে। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা হু-ও এই ভ্যাকসিন তৈরীর প্রক্রিয়ায় খুশি।

এখন প্রশ্ন এই যে, কবে ভ্যাকসিন পেতে পারে বিশ্ববাসী! এ ক্ষেত্রে খুব তাড়াহুড়ো করতে রাজি নয় হু। এর কারণ, একাধিক পরীক্ষার পরে নিরাপদ ভ্যাকসিন দরকার। তাড়াহুড়ো করলে হিতে বিপরীতও হতে পারে।

হু জানাচ্ছে যে, ২০২১-এর আগে প্রথম ভ্যাকসিন আশা করা যাবে না। ২০২১ সালের শুরুর দিকে বিশ্ববাসী ভ্যাকসিন আশা করতে পারে।

আরও পড়ুনঃ সাইক্লিং করতে গিয়ে বিপত্তি, আহত হলেন অভিনেত্রী ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত

WHO-এর এমার্জেন্সি প্রোগ্রামের এগজিকিউটিভ ডিরেক্টর মাইক রায়ান জানিয়েছেন, ভ্যাকসিনের সুষম বন্টনের জন্য বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা কঠোর পরিশ্রম করছে। কিন্তু এই সময় করোনা ভাইরাস আক্রান্তকে নিয়ন্ত্রণ করার চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

রায়ানের কথায়, ‘ভ্যাকসিন তৈরীতে ভালো ভাবেই এগোচ্ছি আমরা। একাধিক ভ্যাকসিন এখন তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে আছে। বাস্তব বিষয়টি হল যে, ভ্যাকসিনের জন্য আগামী বছরের প্রথমার্ধ পর্যন্ত অপেক্ষা করতেই হবে।

আরও পড়ুনঃ দিদি করোনাকে হারিয়ে বাড়ি ফেরার পর রাস্তার মধ্যে তুমুল নাচ বোনের

অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিনের প্রথম পর্যায়েই দুর্দান্ত সাফল্য

successful test of covid-19 in america vaccine will be available at the end of year

লন্ডনঃ অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিনের মানব দেহে প্রথম পর্যায়ের ট্রায়াল সফল হয়েছে। ভ্যাকসিনটি নিরাপদ ও রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাও বাড়াচ্ছে।

করোনার জেরে পৃথিবীতে মৃত্যুর মিছিল নেমেছে। লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা যাচ্ছে প্রতিদিন। এই পরিস্থিতিতে এর থেকে ভালো খবর র কী হতে পারে!

আরও পড়ুনঃ কোভ্যাক্সিন-এর হিউম্যান ট্রায়াল শুরু, কোথায় হচ্ছে এই ট্রায়াল!

প্রথম পর্যায়ের এই ট্রায়ালে ১ হাজার ৭৭ জনের উপর এই ভ্যাকসিনটি ইনজেকশনের মাধ্যমে প্রয়োগ করা হয়। যাতে অ্যান্টিবডি ও হোয়াইট ব্লাড সেল তৈরী হয়, যেটা করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করবে। এর মধ্যেই এই ভ্যাকসিনটি ১০ কোটি ডোজ অর্ডার দিয়েছে ব্রিটিশ সরকার।

আরও পড়ুনঃ ৩ মাস ধরে লাখ লাখ করোনা টিকা তৈরী হবে, জানালো সেরাম ইন্সটিটিউট

কোভ্যাক্সিন-এর হিউম্যান ট্রায়াল শুরু, কোথায় হচ্ছে এই ট্রায়াল!

Covaxin trial

আজ থেকে শুরু হচ্ছে ভারতের তৈরী করোনা প্রতিষেধক এর মানবদেহে ট্রায়াল। এই ট্রায়াল শুরু হচ্ছে দিল্লির এইমস-এ। নাম নথিভুক্ত করা শুরু হওয়ার পর প্রথম ১০ ঘণ্টায় অন্তত ১০০০ জন রেজিস্ট্রেশন করিয়েছেন। কোভ্যাক্সিন-এর প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ে ICMR এইমস সহ ১২টি চিকিৎসা প্রতিষ্ঠানকে বেছে নিয়েছে হিউম্যান ট্রায়াল-এর জন্য।

এই ভ্যাকসিন প্রথম ৩৭৫ জনের শরীরে পরীক্ষামূলকভাবে প্রয়োগ করা হবে। এর মধ্যে এইমস থেকে ১০০ জন থাকতে পারেন। এইমস-এর কমিউনিটি মেডিসিনের অধ্যাপক চিকিৎসা সঞ্জয় রায় জানান, যারা করোনা আক্রান্ত হননি, যাদের শরীরে কোনোরকম অসুস্থতা নেই ও যাদের বয়স ১৮ থেকে ৫৫ বছরের মধ্যে তাদের শরীরেই এই ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা হবে।

আরও পড়ুনঃ ৩ মাস ধরে লাখ লাখ করোনা টিকা তৈরী হবে, জানালো সেরাম ইন্সটিটিউট

ভারত বায়োটেক ও ICMR-এর যৌথ উদ্যোগে তৈরী করা হচ্ছে করোনার প্রতিষেধক কোভ্যাক্সিন। ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া কিছুদিন আগেই কোভ্যাক্সিনের হিউম্যান ট্রায়ালের অনুমতি দেয়।

আরও পড়ুনঃ সোনার মাস্ক পরলেন কটকের এক ব্যবসায়ী, ভাইরাল সেই ছবি

৩ মাস ধরে লাখ লাখ করোনা টিকা তৈরী হবে, জানালো সেরাম ইন্সটিটিউট

corona vaccine will be made in three months

নয়াদিল্লিঃ বিশ্বের বৃহত্তম টিকা প্রস্তুতকারী সংস্থা সেরাম ইন্সটিটিউট অফ ইন্ডিয়া প্রাইভেট লিমিটেড করোনা টিকা তৈরী করার জন্য অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে পার্টনারশিপে গেল। এ ছাড়াও তারা দেশীয় প্রযুক্তিতে তৈরী প্রথম নিজস্ব টিকা বানানোর জন্য অনুমতি পেয়েছে ডিজিসিআইয়ের কাছে।

সেরাম ইন্সটিটিউটের সিইও আদার পুনাওয়ালা বলেছেন, প্রত্যেকের জন্য টিকার ব্যবস্থা করতে দেরি আছে এখনও, তার কারন কতগুলি টিকা তৈরী করতে হবে সেটা এখনও ঠিক হইনি। তারপর তা পৌছে দিতে হবে সারা বিশ্বে, আর প্রথম যে টিকাটি লাইসেন্স পাবে, সেই টিকাই যে সবথেকে ভালো হবে এমন কিছু নয়। করোনা টিকা তৈরীর জন্য একাধিক পরীক্ষা চলছে বিশ্ব জুড়ে, সেরা টিকা কোনটা সেটা জানতে হলে অপেক্ষা করতে হবে।

অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গে পার্টনারশিপে যাওয়া ব্রিটিশ ওষুধ প্রস্তুতকারী সংস্থা অ্যাস্ট্রাজেনেকার সঙ্গে হাত মিলিয়েছে সেরাম ইন্সটিটিউট করোনা টিকা তৈরির জন্য। এজন্য তারা শত শত মিলয়ন ডলার খরচ করবে। টিকা তৈরীর লাইসেন্স পেয়ে গেলে সেরাম আগামী ৩ মাসে লাখ লাখ করোনা টিকা তৈরী করবে।

আরও পড়ুনঃ ৩৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবীর উপর শুরু হল কোভ্যাক্সিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল

এর পাশাপাশি সেরাম ইন্সটিটিউটের রয়েছে নিজেদের ভিপিএম ১০০২ টিকা। তাদের ধারণা এই যে, টিবি নির্মূলে কার্যকর এই টিকা করোনা যুদ্ধেও গেমচেঞ্জার হতে পারে। এই টিকা ১০০০-এর বেশি রোগীর উপর পরীক্ষা করা হয়েছে। আগামী ২ মাসে জানা যাবে করোনা সংক্রমণ কমাতে এই টিকা কতটা ফলপ্রসূ।

আরও পড়ুনঃ সোনার মাস্ক পরলেন কটকের এক ব্যবসায়ী, ভাইরাল সেই ছবি

৩৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবীর উপর শুরু হল কোভ্যাক্সিনের ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল

corona vaccine arrive in septembar

কলকাতাঃ শুরু হল ভারত বায়োটেকের করোনা টিকা কোভ্যাক্সিনের মানব শরীরে পরীক্ষা। দেশজুড়ে ৩৭৫ জন স্বেচ্ছাসেবীর শরীরে এই টিকা প্রয়োগ করা হয়েছে। এই পরীক্ষা ১৫ তারিখ থেকে এই শুরু হয়েছে।

ড্রাগ কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া বা ডিজিসিআই দুটি সংস্থাকে টিকা তৈরী করার অনুমতি দিয়েছে। এদের মধ্যে একটি হল ভারত বায়োটেক, ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ বা আইসিএমআরের সঙ্গে হাত মিলিয়ে টিকা তৈরী করছে, অন্যটি হল, বেসরকারি সংস্থা জাইডাসক্যাডিলা হেলথকেয়ার লিমিটেড, তারাও মানব শরীরে শুরু করেছে পরীক্ষা।

আরও পড়ুনঃ সোনার মাস্ক পরলেন কটকের এক ব্যবসায়ী, ভাইরাল সেই ছবি

আইসিএমআর-এর ডিরেক্টর বলরাম ভার্গব জানিয়েছেন, এই দুটি টিকা ইঁদুর ও খরগোশ-এর উপর সফলভাবে পরীক্ষিত হয়েছে। পরীক্ষার ফল ডিজিসিআইয়ের কাছে জমা দেওয়া হয়। তারপর ছাড়পত্র মিলে যাওয়ায় শুরু হয়েছে মানব দেহে পরীক্ষা।

আরও পড়ুনঃ বাড়ির বাইরে থাকলে স্যানিটাইজার কিভাবে ব্যবহার করবেন! জেনে নিন

সবাইকে পিছনে ফেলে করোনা ভ্যাকসিন তৈরী করলো রাশিয়া

successful test of covid-19 in america vaccine will be available at the end of year

কোন দেশ প্রথম করোনা ভ্যাকসিন তৈরী করবে এই নিয়েই চলছিল চর্চা। তার মধ্যেই রাশিয়ার সেকেনভ বিশ্ববিদ্যালয়ের দাবি, তাদের তৈরী ভ্যাকসিন মানুষের দেহে ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ হয়েগেছে। ভ্যাকসিনের পরীক্ষার ফলও ইতিবাচক বলে দাবি।

ভ্যাকসিন তৈরীর সঙ্গে যুক্ত গবেষক দলের প্রধান ইলেনা স্মোলিয়ারচুক দাবি করেছে রাশিয়ার সংবাদসংস্থা TASS-এর কাছে, এই ভ্যাকসিন যাদের উপর পরীক্ষামূলক ভাবে প্রয়োগ করা হয়েছিল, তাঁরা সুস্থ রয়েছেন এবং খুব শিগগিরই ছাড়া পাবেন।

আরও পড়ুনঃ বাড়ির বাইরে থাকলে স্যানিটাইজার কিভাবে ব্যবহার করবেন! জেনে নিন

স্মোলিয়ারচুক জানিয়েছেন, গবেষণা সম্পুর্ন হয়েছে এবং এই ভ্যাকসিনটি নিরাপদ এটা প্রমাণিত। ভ্যাকসিন যাদের উপর প্রয়োগ করা হয়েছিল তাঁদের ১৫ এবং ২০ জুলাই দুটি ধাপে ছেড়ে দেওয়া হবে। ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শেষ হলেও এই ভ্যাকসিনের কবে থেকে বাণিজ্যিক উৎপাদন শুরু হতে পারে, সে বিষয়ে এখনও কিছু জানা যাইনি।

আরও পড়ুনঃ আমেরিকায় কোভিড-১৯ এর সফল পরীক্ষা, বছরের শেষেই পাওয়া যাবে ভ্যাকসিন