প্রধানমন্ত্রীর নতুন বার্তা দিলেন কৃষকদের জন্য

twitter account hacked

নয়াদিল্লিঃ কৃষি বিল পাশ হয়ে যাওয়ায় স্বাগত জানালেন নরেন্দ্র মোদি। এর পাশাপাশি তিনি বিরোধী দলগুলিকেও কটাক্ষ জানালেন। তিনি বলেন, এই বিল পাশ হয়ে যাওয়ায় সত্যিকারের স্বনির্ভর হয়ে উঠবে কৃষকেরা। এর পাশাপাশি, কৃষকদের এমএসপি ও সরকারের ক্ষতিপুরণের প্রক্রিয়া চলতে থাকবে। আরও স্বনির্ভর হয়ে উঠবেন কৃষকেরা।

আরও পড়ুনঃ আগ্রার মুঘল জাদুঘরের নাম বদলে নতুন নামকরণ করা হল

তিনি ট্যুইটারে লেখেন, দেশের কৃষকদের কাছে এই কৃষি বিল পাশ হওয়া এক ঐতিহাসিক ঘটনা হয়ে থাকবে। এই কৃষি বিল মধ্যস্বত্বভোগী দেখে কৃষকদের সত্যিকারের মুক্তি দেবে। স্বনির্ভর করে তুলবে তাদের। লোকসভায় আজই পাশ হয় Produce Trade and Commerce (Promotion and Facilitation) Bill, 2020 ও Farmers (Empowerment and Protection) Agreement on Price Assurance and Farm Services Bill, 2020।

এই বিল নিয়ে শাসক দলকে আক্রমণ করছে কংগ্রেস। বলেছে, এতে কৃষকদের ভবিষ্যৎ নষ্ট করে দেওয়া হবে। পাঞ্জাবের মুখ্যমন্ত্রী অমরিন্দর সিং বলেছেন যে, কৃষকদের মিনিমান সাপোর্ট তুলে দেওয়ার পথে সরকারের এটা প্রথম পদক্ষেপ। এর উত্তরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি লিখেছেন, অনেকেই চেষ্টা করছে কৃষকদের মনে একটা সংশয় সৃষ্টি করতে। সেইজন্য আমি কৃষকদের ও কৃষি ক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত মানুষদের অনুরোধ করবো লোকসভায় এই বিল নিয়ে কি আলোচনা হবে, সেটির দিকে নজর দিতে।

আরও পড়ুনঃ আবার বিশ্বমঞ্চে এক নতুন সাফল্য ভারতের, ব্যর্থ হল চিন

প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে, কী চাইছে হ্যাকাররা!

twitter account hacked

নয়াদিল্লিঃ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট হ্যাক করা হয়েছে। এর সাথে হ্যাকাররা প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদীর মোবাইল অ্যাপেও হানা দিলো। বৃহস্পতিবার ভোর ৩টে ১৫ নাগাদ হ্যাক করা হয় প্রধানমন্ত্রীর অ্যাকাউন্ট। প্রধানমন্ত্রীর ওয়েবসাইটের ট্যুইটার অ্যাকাউন্টের ফলোয়ারের সংখ্যা হল ২৫ লক্ষ।

আরও পড়ুনঃ Unlock4-এ নতুন নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের

হ্যাক করার পর ওই অ্যাকাউন্টে ট্যুইট করা হয়েছে, ‘হ্যাঁ এই অ্যাকাউন্টটি জন উইকের দ্বারা হ্যাক করা হয়েছে। আমরা Paytm মল হ্যাক করিনি।’ হ্যাকাররা একাধিক ট্যুইট করেছে। ফলোয়ারদের বলা হয়েছে যে, প্রধানমন্ত্রীর জাতীয় ত্রাণ তহবিলে ক্রিপ্টোকারেন্সির মাধ্যমে দান করতে।

আরও একটি ট্যুইটে বলা হয়েছে, ‘আমি আপনাদের কাছে আবেদন করছি, প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে ক্রিপ্টোকারেন্সির মাধ্যমে দান করুন। ট্যুইটারের তরফে জানানো হয়েছে, এই ঘটনাটির ব্যাপারে তারা অবহিত। অ্যাকাউন্টটি সুরক্ষিত রাখার জন্য প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিচ্ছে। এই ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ পেঁয়াজের রস নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে, জেনে নিন ব্যবহারের উপায়

রাজ্যে এলো ‘কোভাস’ উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী

Narendra Modi

আজ প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী উদ্বোধন হতে চলেছে কোভিড-১৯ পরীক্ষার নতুন যন্ত্র ‘কোভাস’। এই উদ্বোধনে থাকবেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। এই ‘কোভাস’ যন্ত্রতে প্রতিদিন তিন হাজার পরীক্ষা করা যাবে।

আরও পড়ুনঃ বাংলো ছাড়ার আগে কোন বিজেপি নেতাকে চা খেতে ডাকলেন প্রিয়াঙ্কা!

এই ‘কোভাস’ যন্ত্রটি আজ উদ্বোধন করা হবে নাইসেডে। এই ‘কোভাস’ যন্ত্রটি নিয়ে আসা হয়েছে জার্মানি থেকে। আজ ভার্চুয়ালে প্রধানমন্ত্রী উদ্বোধন করবেন ‘কোভাস’ যন্ত্রটি। এই উদ্বোধনের ফাঁকে বৈঠকের সম্ভাবনা মোদী ও মমতার।

আরও পড়ুনঃ সিনেমা হল কবে খুলবে! প্রস্তাব কেন্দ্রীয় মন্ত্রকের

লাদাখে সেনার সঙ্গে বৈঠকের ফাঁকে পুজো সারলেন প্রধানমন্ত্রী, দেখুন ভিডিও

Narendra Modi

শুক্রবার হঠাৎ করে সবার অজান্তের দেশের প্রধানমন্ত্রী হাজির হয়েছিলেন লাদাখে। খবর ছিল দেশের প্রতিরক্ষামন্ত্রী লাদাখ সফরে যাবেন। শেষ মুহুর্তে বাতিল হয়ে যায়। আর সবাইকে অবাক করে দিয়ে সেখানে পৌছে যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। শুক্রবার সকালে লাদাখের লে বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারে করে প্রধানমন্ত্রী সোজা ১১ হাজার ফুট উঁচুতে অবস্থিত নিমুতে। সেখানে উপস্থিত ভারতীয় সেনার সাথে বৈঠক করেন নরেন্দ্র মোদী। আর তারই এক ফাঁকে সিন্ধু দর্শন পুজো সেরে নেন প্রধানমন্ত্রী।

আরও পড়ুনঃ এক নজরে দেখে নিন কোন রাজ্যে রয়েছে সব থেকে বেশি সুস্থতার হার

১৫ জুন গালওয়ান উপত্যকাতে ভারতীয় সেনা ও চিনা সেনার মধ্যে সংঘর্ষের ফলে দুই দেশের মধ্যেই এখন পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে আছে। বার বার দুই দেশের মধ্যে সেনা বৈঠক হলেও সমাধান এখন হয়নি। পরিবর্তে সিমান্তে চিনা সেনার সংখ্যা বাড়াতে থাকে চিন। এই রকম এক পরিস্থিতিতে প্রধানমন্ত্রীর লাদাখ সফর ও সেনার সাথে বৈঠক খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন বিভিন্ন মহল।

লাদাখ সফরে গিয়ে সেনার মনোবল বৃদ্ধির সাথে সাথে চিনের নাম না উল্লেখ করেই হুঁশিয়ারি দেন প্রধানমন্ত্রী। এই সফর শেষ হতেই লাদাখ সিমান্তে বাড়ান হচ্ছে সেনা।

আরও পড়ুনঃ চিকিৎসকের পিপিই পোশাক পরেই ‘গরমি’ গানে অসাধারণ নাচ

আমফানঃ প্রধানমন্ত্রী বিমান সমীক্ষার জন্য যাত্রা করলেন পশ্চিমবঙ্গের উদ্দেশ্যে

Narendra Modi

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী শুক্রবার দিন রওনা হলেন বাংলার উদ্দেশ্যে। বিমানে চালাবেন আমফানের ফলে ক্ষতিগ্রস্থ এলাকের পরিদর্শন। দিনের শেষে যাবেন ওড়িশা সফরে। বিমানের সাহায্যে পরিদর্শনের পাশাপাশি তিনি মিটিং করবেন। যেখানে আলোচনা হবে পরবর্তী পদক্ষেপগুলির উপর। কিভাবে এই ক্ষতির থেকে আবার মানুষকে পুনরুদ্ধার করা যায় সেটাই হতে চলেছে মিটিং এর মূল উদ্দেশ্য।

আরও পড়ুনঃ ভারতে ২৪ ঘন্টায় আক্রান্ত হল ৫,৬১১ জন; মোট আক্রান্ত ১,০৬,৭৫০ জন

এর আগে প্রধানমন্ত্রী সফরে গিয়ে ছিলেন প্রয়াগরাজ ও চিত্রকুট। সেটি ছিল ফেব্রুয়ারি মাসের ২৯ তারিখে। তারপর ৮৩ দিনের পর এবার বাংলার সফরে আসছেন তিনি।

আমফান বড়ই ভয়ঙ্কর রুপ ধারন করে আছড়ে পড়েছে বাংলার দিঘা, হাতিয়া এর উপর যেখানে ঝড়ের গতিবেগ ছিল ১৫৫ থেকে ১৬৫ কিলোমিটার।

আরও পড়ুনঃ চতুর্থ লকডাউনে কোন কোন ক্ষেত্রে ছাড় দিলেন মুখ্যমন্ত্রী, জেনে নিন

কী এই আত্মনির্ভর ভারত অভিযান?

Prime Minister Narendra Modi

দেশে করোনা ভাইরাসের প্রভাব দিন প্রতিদিন বেড়েই চলেছে। তাই মানুষ ভালোভাবেই বুঝতে পারছে যে এই করোনা ভাইরাসকে সহজে মানুষের জীবন থেকে সরিয়ে ফেলা যাবে না। ফলে বড়ই লম্ব সময়ের জন্যই থাকতে চলেছে এই করোনা ভাইরাস। তাই করোনা যেহেতু লম্বা সময়ের জন্য আমাদের জীবনে থাকতে চলেছে, তাই আমাদের বাঁচতে হবে, এগিয়ে যেতে হবে, গড়ে তুলতে হবে আত্মনির্ভর ভারত, সেই বার্তাই জানালেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মঙ্গলবার জাতির উদ্দেশ্যে ভাষনে তিনি বলেন, “করোনা পরিস্থিতি ভারতকে আত্মনির্ভর হতে শেখাচ্ছে। আমাদের সংকল্প আত্মনির্ভর ভারত।” এর পর তিনি এই আত্মনির্ভর ভারত গড়তে ২০ লক্ষ কোটি টাকার এক বিশেষ আর্থিক প্যাকেজের ঘোষণা করেন।

কী এই বিশেষ আর্থিক প্যাকেজ?

আরও পড়ুনঃ আগস্টেই ভারতের বাজারে আসতে পারে করোনার ওষুধ

জাতির উদ্দেশ্যে ভাষনে প্রধানমন্ত্রী বলেন,”এই আর্থিক প্যাকেজ আত্মনির্ভর ভারত অভিযানের কাজ করবে। ২০ লক্ষ কোটির আর্থিক প্যাকেজ। সংগঠিত ও আসংগঠিত সব শ্রেণির মানুষের জন্য এই প্যাকেজ। জমি, শ্রম, নগদের জোগানের জন্য এই প্যাকেজ। এই ফলে উপকৃত হবে কৃষকরাও।”

এই ভাষনে প্রধানমন্ত্রী ৫ টি স্তম্ভের কথা উল্লেখ করেন। সেই পাঁচটি স্তম্ভ হল, অর্থনীতি, পরিকাঠামো, সিস্টেম, ডেমোগ্রাফি ও চাহিদা। এই পাঁচটি স্তম্ভের ভিত্তিতে গড়ে উঠবে এক নতুন আত্মনির্ভর ভারত।

আরও পড়ুনঃ নজির গড়লেন এক গর্ভাবতী নার্স করোনার মাঝেও তিনি মানুষের সেবায়

কড়া নজরদারি চলবে হটস্পট এলাকায় জানালেন প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোন্ত্রী আজ সকাল ১০ টায় জাতির উদ্দেশ্যে ভাষন দেন। সেই ভাষনে লকডাউন বৃদ্ধির কথা বলেন। তার সাথে আরও কিছু কথাও বলেন তিনি। যার মধ্যে তিনি জানান আগামীকাল একটা তালিকা আসবে। সেই তালিকা অনুযায়ী মানুষের অসুবিধার সমাধান করা হবে বলে জানান। তার সাথে যে সব জায়গাগুলি হটস্পট হিসেবে চিহ্নিত করা হবে সেই সব স্থানগুলিতে কড়া নজরদারী চালানো হবে বলে উল্লেখ করেন।

দেশের পরিস্থিতি যে একেবারেই ভালো নেই সেই অবস্থা মানুষের মুখ থেকে বার বার সুনতে পাওয়া যায় সোশাল মিডিয়ের মাধ্যমে। তারই মধ্যে লকডাউন বৃদ্ধি, বেশ কিছু অংশ মানুষের বিপদের সন্মুখিন হতে হবে। তবে এই করোনাকে প্রতিরোধ করার আর কোনো উপায় নেই বলে বলেন প্রধানমন্ত্রী। তাই তিনি সবাইকে ধৈর্যের সাথে বাড়িতে থাকতে বললেন।

দেশে বাড়ল লকডাউনের সময়সীমা জানালেন প্রধানমন্ত্রী

PM-Modi-Speach

দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দিন দিন বেড়ে চলেছে মাত্রাহীন ভাবে। দেশের এই পরিস্থিতির কথা ভেবেই প্রধানমন্ত্রী আগেই রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে কথা বলে ছিলেন। সেই আলোচনায় একটা ইঙ্গিত মিলেছিল। তবে আজ প্রধানমন্ত্রীর জাতির উদ্দেশ্যে ভাষনে তিনি জানালেন যে, আগামী ৩ মে পর্যন্ত লকডাউন চলবে।

এই লকডাউনের মধ্যে সবাইকে ঘরের মধ্যে থাকার নির্দেশ দিলেন তিনি। মুখে মাস্ক ব্যবহারের কথাও বললেন তিনি। সাথে প্রতিটি ভারতবাসীকে অনেক অনেক ধন্যবাদ জানালেন। প্রতিটি স্বাস্থ্য কর্মী, পুলিশকে সন্মানে কথাও বললেন নরেন্দ্র মোদী।

ভারতবর্ষ ও নরেন্দ্র মোদীর ব্যাপারে যা বললেন ট্রাম্প

Donald Trump and Narendra Modi

বেশ কিছু দিন ধরে ভারতের সঙ্গে আমেরিকার কথপোকথন চলছিল। তারই মধ্যে ট্রাম্প ভারতকে হুঁশিয়ারির ছলে চেয়ে বসেন হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ। কিন্তু হঠাৎ আমেরিকার রাষ্ট্রপতিকে ভারতের কাছে এই ঔষধ চাইতে হল কেন?

আসলে করোনা ভাইরাসের জেরে সমগ্র বিশ্ব এখন মৃত্যুলীলার এক ভয়াবহ রূপ দেখতে পাচ্ছে। কোনো ঔষধই কাজ করছে না। বাঁচাতে পারছে না বহু মানুষের জীবন। এই অবস্থাতে ভারতের স্বাস্থ্য বিভাগ ম্যালেরিয়া রোগের ওষুধ হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ ব্যবহারের কথা জানায়। তখন ভারতে কয়েকশো মানুষ করোনায় আক্রান্ত ছিল। সেই অবস্থাতে ভারতের সরকার ঠিক করে যে এই হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ দেশের বাইরে আর রপ্তানি করবে না।

বিভিন্ন দেশের ডাক্তার ও বিজ্ঞানীরা পরিক্ষা-নীরিক্ষার মাধ্যমে দেখেন যে ম্যালেরিয়ার ওষুধ হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ সব থেকে বেশি কার্যকরী করোনা ভাইরাসের মোকাবেলায়। তাই ভারতের সাথে সাথে বাকি দেশগুলিও এই ঔষধ ব্যবহারের কথা বলে। ফলে রাতারাতি এই ওষুধের চাহিদাও বেড়ে যায়।

মার্কিন রাষ্ট্রপতি ভারতের কাছেই চেয়ে বসলেন হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ। কিন্তু ভারতই কেন? আসলে এই হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ উৎপাদনে বিশ্বে ভারতের স্থান প্রথম। বিশ্বের নিরিখে ভারত ৭০ শতাংশ হাইড্রোক্সিক্লোরোকুইণ উৎপাদন করে। সেই হিসাবে ট্রাম্প ভারতের কাছে এই ঔষধের আবেদন করে।

সেই কথা মতো প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বিভিন্ন আলোচনার পর এই ঔষধ আবার রপ্তানি করার সিন্ধান্ত নেন। সাথে যথাসাদ্ধ পরিমান ওষুধ আমেরিকায় পাঠায়। আর সেই কারনে মার্কিন রাষ্ট্রপতি ভারত ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর প্রশংসায় পঞ্চোমুখ। মার্কিন রাষ্ট্রপতি বলেন,

“অসাধারণ সময়ে বন্ধুদের মধ্যে আরও ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা প্রয়োজন। HCQ- এর সিদ্ধান্তের জন্য ভারত এবং ভারতীয় জনগণকে ধন্যবাদ। এ ভুলে যাবে না! এই লড়াইয়ে কেবল ভারতকে নয়, মানবতার পক্ষে সহায়তা করার জন্য, আপনার নেতৃত্বের জন্য প্রধানমন্ত্রী আপনাকে ধন্যবাদ!” এই বলে ট্রাম্প টুইটারে টুইট করেন।

আজ সকাল ৯ টায় দেশবাসীর উদ্দেশ্যে বার্তা দেবেন প্রধানমন্ত্র

lockdown

ভারতে একটি ঘটনা যার কারনে ২৪ ঘন্টার মধ্যে ৩০০ জনেরও বেশি মানুষ করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়। এই সংখ্যা যে ভারতবর্ষের জনয় ভালো ইঙ্গিত দিচ্ছে না তা বোঝাই যায়।

গোটা দেষ জুড়ে যেমন আতঙ্কের মহল তৈরি হয়ে আছে কিছু মানুষের মনে। ঠিক তেমন কিছু মানুষের মানও আবার লকডাউন অমান্য করার এক জেদ চেপে বসে আছে। আবার কিছু মানুষকে বিশেষ দরকারে বাড়ির বাইরে যেতে হচ্ছে।

আগে আমরা দেখেছিলাম প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ২২ মার্চ টিক রাত ৮ টায় এই ১৩০ কোটি জন সমুদ্রের উদ্দেশ্যে বার্তা দিয়েছিলেন। সেই বার্তাই তিনি ২২ মার্চ সকাল ৭ টা থেকে রাত ৯ টা পর্যন্ত ১৪ ঘন্টার জন্য কারফু ঘোষনা করেন।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা পুলিশ এবার গান গেয়ে প্রচার করলেন করোনা

পরবর্তী সময়ে ২৪ মার্চ রাত ৮ টার সময়ে আবার তিনি ভারতবাসীর জনয় বার্তা নিয়ে আসেন। সেখানে তিনি ঘোষনা করেন সেই দিন রাত ১২ টা থেকে আগামী ২১ দিন ভারত জুড়ে থাকবে লকডাউন। সেই ২১ দিনের মধ্যে আজ ১০ ম তম দিন।

প্রধানমন্ত্রী টুইটারে টুইট করে আগেই জানিয়ে দিয়েছেন যে তিনি আজ ৩ এপ্রিল সকাল ৯ টার সময় এই বিশাল জনগণের উদ্দেশ্যে কিছু বক্তব্য নিয়ে আসবেন। বলা বাহুল্য, এই বক্তব্য যে কোনো সাধারন বক্তব্য হবে না তা স্পষ্ট ভাবে বোঝাই যায়।

সম্প্রতি দিল্লির এক ধর্ম অনুষ্টানের জেরে সারা ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে করোনায় আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যাটা দ্রুত বাড়ছে। এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে দেশের মানুষের যে কতো বড়ো ক্ষতি হতে পাড়ে তার কোনো ধারনা করা যায় না। বিজ্ঞানীদের মতে, ভারতে যদি এই ভাবে চলতে থাকে তাহলে আর কিছু দিনের মধ্যেই দেশ তৃতীয় ধাপে পা দিতে চলেছে।

আশা করা যায়, এই সব কথা মাথায় রেখে নরেন্দ্র মোদী কিছু বার্তা প্রদান করতে পাড়ে। হতে পারে লকডাউনের সময়সীমা বৃদ্ধি, অথবা অন্য কোনো পদ্ধতির সংযোজন করা হতে পাড়ে এই লকডাউনের মধ্যেই।

তবুও আমাদের সকলের সেই বার্তার জনয় অপেক্ষা করতে হবে আরও কিছু সময়।

আরও পড়ুনঃ বিনা পরীক্ষাতেই পরের শ্রেনীতে পড়ুয়াদের, সিবিএসই-র সিদ্ধান্ত