দুর্গাপুজোর মণ্ডপ নিয়ে এক নতুন প্রস্তাব মুখ্যমন্ত্রীর

Chief Minister

কলকাতাঃ করোনা আবহে দুর্গাপুজোর প্যান্ডেল হোক খোলামেলা। এমনটাই প্রস্তাব মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সোমবারে নবান্নের সাংবাদিক বৈঠক থেকে বলেন মুখ্যমন্ত্রী, ‘রাজ্য সরকার গঠিত গ্লোবাল পরামর্শদাতা কমিটির সদস্যরা পুজো মণ্ডপ নিয়ে ভালো পরামর্শ দিয়েছে একটা। আমরাও প্রস্তাব এটা। দুর্গাপুজোর মণ্ডপে যাতে এবারে যথেষ্ট হাওয়া বাতাস ঢোকে সেই ব্যাবস্থা রাখতে হবে, গোটা মণ্ডপটা যাতে বদ্ধ না লাগে। মানুষের নিঃশ্বাস প্রশ্বাস নিতে অসুবিধা না হয় যাতে। মণ্ডপে হাওয়া বাতাস ঢুকলে জীবাণু থাকলে তা বেরিয়ে যাবে।

আরও পড়ুনঃ চিন নিয়ে এলো নতুন এক পদ্ধতির করোনা টিকা

এবারের পুজো পরিকল্পনা নিয়ে পুজো কমিটিগুলির সঙ্গে ২৫ সেপ্টেম্বর বসতে পারেন মুখ্যমন্ত্রী ও পুলিশ প্রশাসন। পুজো প্যান্ডেল তৈরীর ক্ষেত্রে বিশেষ কিছু নির্দেশ দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি বলেন যে, বিশেষজ্ঞদের মতে খোলা প্যান্ডেলের বদলে ঢাকা মণ্ডপে ভেন্টিলেশনের ব্যবস্থা রাখলে তা অতটা কার্যকরী হবে না। খোলা হাওয়া বাতাস চলাচলের ব্যবস্থা রাখা ভালো প্যান্ডেলে। কিন্তু তিনি এও বলেন গোটা প্যান্ডেল ঢাকা থাকবে এমনটা নয়। তিনি বলেন, ‘যেখানে দুর্গা প্রতিমা থাকবে সেই জায়গাটা খোলা রাখতে হবে। কিন্তু যেখানে দারিয়ে মানুষ অঞ্জলি দেবেন ও ঠাকুর দেখবেন সেই জায়গাটা খোলা রাখতে হবে।

আরও পড়ুনঃ করোনা অতিমারীর শেষ কবে, জানালো হু

NEET, JEE পরীক্ষার তারিখ নিয়ে কেন্দ্রকে ভেবে দেখার আহ্বানঃ মমতা

Mamata Banerjee

পরীক্ষার তারিখ নিয়ে বেশ কিছু সময় ধরে জল্পনার কেন্দ্রবিন্দু হয়ে দাঁড়িয়েছে। কবে স্কুল খুলবে, কবে পরীক্ষা শুরু হবে সেই নিয়ে বার বার প্রশ্ন উঠে এসেছে। আর তাই নিয়ে প্রতিবার সরব হয়েছেন মাননীয় পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এবারেও তার ব্যতিক্রম হলনা। আবার তিনি কেন্দ্রকে এই বিষয়ে ভাবার অনুরোধ জানিয়েছেন।

আরও পড়ুনঃ দায়িত্বহীন ব্যক্তিরা ভারতে COVID-19 মহামারী বাড়াচ্ছে দাবী ICMR-এর

পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চিঠি দিয়েছেন NEET এবং JEE পরীক্ষার তারিখ নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে একটি রিভিউ পিটিশন দাখিল করার বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারকে অনুরোধ করেছেন।

চিঠিতে তিনি এই বিষয়টিকে সংবেদনশীলতার সাথে দেখার কথা বলে ও বর্তমান পরিস্থিতি আবার অনুকূল না হওয়া পর্যন্ত এই পরীক্ষাগুলি স্থগিতের জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের কথা বিবেচনা করে দেখার কথা বলেন।

আরও পড়ুনঃ করোনা অতিমারীর শেষ কবে, জানালো হু

বড় ঘোষণা! আগামী বছর জুন পর্যন্ত ফ্রি রেশন পাবে রাজ্যবাসী

Mamata Banerjee

বড় ঘোষণা করলেন মাননীয় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার। আগামী নভেম্বর পর্যন্ত ফ্রি রেশনের কথা ঘোষণা করেন প্রধানমন্ত্রী। তার থেকে এক ধাপ এগিয়ে ফ্রি রেশনের মেয়াদ বাড়িয়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

মঙ্গলবার মুখ্যপাধ্যায় জানান, রাজ্যের মানুষ ফ্রি রেশন পাবে আগামী বছরের জুন মাস পর্যন্ত। যাতে মানুষ খেতে পায় সেই ব্যবস্থা করছেন রাজ্য সরকার।

আরও পড়ুনঃ ভারতে টিকটক সহ ব্যান চিনের ৫৮ টি অ্যাপ

করোনা সংক্রমনের রেষ যে একেবারেই থামার নাম নিচ্ছে না। ফলে মানুষের কাজকর্ম আগের মতো স্বাভাবিক করা এখনই সম্ভব নয়। ফলে আর্থক টানাপড়েনের মধ্যে পড়তে হচ্ছে কমবেশি সবাইকেই। ফলে ফ্রি রেশনের মেয়াদ বাড়িয়ে দিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আর পড়ুনঃ বৈঠকে কাটল না জট, ১লা জুলাই চালু হচ্ছে না কলকাতা মেট্রো

করোনা মোকাবেলায় রাস্তায় নেমে মাইকিং মুখ্যমন্ত্রীর

mamata-banerjee-visiting-various-place-in-kolkata

রাজ্যের মানুষের মনে করোনা পরিস্থিতিতে লড়াই করার জন্য বার্তা পৌঁছে দিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই মাইকিং করলেন। কলকাতার বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে বার্তা পৌছালেন তিনি।

বেশ কিছু দিন ধরে রাজ্যে করোনা ভাইরাসের আক্রমণ বেড়েই চলেছে। সেই পরিস্থিতিতে মোকাবেলা করার জন্য ও মানুষকে সাবধান করার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যে কোভিড- ১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ৪২৩ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৫।

তিনি কলকাতার বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করে দেখেন। সাথে হ্যান্ডগ্লাবস ও মাস্ক বিতরণ করেন নিত্য দিনের কর্মীদেরকে। সাফাইকর্মীদেরকে স্যানিটাইজ করার ব্যাপারে অবগত করেন।

অনেক বড় লড়াই এসেছে, করোনা নিয়ে বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী

mamata banerjee giving a message to all State residents.

আবার একবার মানুষকে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

কলকাতাঃ করোনা নিয়ে মানুষকে অযথা আতঙ্কিত না হওয়ার বার্তা দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বললেন চিন্তা করার কোনো কারণ নেই তবে সতর্ক থাকবেন।

শুক্রবার নবান্নে সাংবাদিক সম্মেলনে তিনি বলেন, এখনও পর্যন্ত রাজ্যে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ৩৮। করোনা মুক্ত হয়েছেন এখনও ১২ জন। আজকে আরও সুস্থ হয়েছেন ৯ জন। সরকারি কোয়ারেন্টিনে আছেন ১৮৯২ জন। এছাড়া হোম কোয়ারেন্টিনে আছে ৫২ হাজার। মুখ্যমন্ত্রী কি বার্তা দিলেন তা দেখে নেওয়া যাক-

  • চিকিৎসায় সাড়া দিচ্ছেন করোনা আক্রান্তরা।
  • হাসপাতালে করোনা আক্রান্তের চিকিৎসা করব না, হয় না।
  • অনেক বড় লড়াই এসেছে, এটাও একটা লড়াই।
  • একএকটি হাসপাতালে শুধু চিকিৎসা হচ্ছে করোনারই।
  • করোনার চিকিৎসার জন্য রাজ্যে ৫৯ টি হাসপাতাল।
  • বাঙ্গুরের রোগীদের এসএসকেএম, আনা হচ্ছে শম্ভুনাথ এ।
  • এমআর বাঙ্গুরে করোনারই চিকিৎসা শুধুমাত্র।
  • সাগর দত্ত হাসপাতালে কি হবে, তা ঠিক করবে সরকার।
  • সরকার আইন অনুযায়ী যে কোনও জায়গায় করতে পারে।
  • কোথায় কার চিকিৎসা হবে, তা ঠিক করবে সরকার।
  • আরও অনেক মানবিক হতে হবে সবাইকে।
  • কোথাও হয়তো রেশন পেতে একটু সময় লাগছে।
  • একসঙ্গে জমায়েত যেন না হয়, তা দেখতে হবে।
  • বাংলা যা করে দেখিয়েছে, তা অন্যের কাছে মডেল।
  • প্রতিমুহুর্তে আমরা অন্য রাজ্যের সঙ্গে যোগাযোগ রাখছি।
  • কে কোথায় খাবার পাচ্ছেনা, কার কি সমস্যা, দেখা হচ্ছে।
  • কিছু লোক আছে, কাজ নেই বলবেই।
  • খাদ্যসামগ্রী সরবরাহ স্বাভাবিক রাখা হয়েছে।
  • সময় না দিয়েই লকডাউন, একটু সময় লাগছে তাই।
  • যারা বলছে কিছু পাইনি, খুব সহজ বলাটা।
  • টাকা নেই, পর্যাপ্ত পরিমাণে মাস্কের অর্ডার দিয়েছি তাও।
  • থার্মাল গান ২০ হাজার দেওয়া হয়েছে অর্ডার।
  • সব রোগী ভালো আছে বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে।
  • আজ ৯ জন বাড়ি ফিরেছেন করোনা মুক্ত হয়ে।
  • লকডাউনে রাজ্যের প্রচুর আর্থিক ক্ষতি হয়েছে।
  • অনেক রাজ্যেই পুরো মাইনে দিতে পারেনি, আমরা পেরেছি।
  • রেশন দোকানে সবাই একসঙ্গে না দাড়িয়ে দুরত্ব রাখুন।
  • ঘরে থাকাটাই সবচেয়ে বেশি নিরাপদ এখন।

মুখ্যমন্ত্রী রাজ্যের মানুষের কাছে এই বার্তা দিলেন। ও তার সাথে সতর্ক থাকার বার্তা দিলেন।