বন্ধ গ্লোবাল ট্রায়াল, তবে ভারত কী চালাতে পারবে ট্রায়াল!

corona vaccine will be made in three months

নয়াদিল্লিঃ প্রতিষেধক নেওয়ার সময়ে এক ব্রিটিশ স্বেচ্ছাসেবক অসুস্থ হয়ে পড়েছে। বুধবার ব্রিটেন হঠাৎই বন্ধ করে দেন অ্যাস্ট্রোজেনেকার তৃতীয় ট্রায়াল। বলা হয়, গ্লোবাল ট্রায়ালই স্থগিত করা হচ্ছে। এমনকি পরের ধাপে শুরু হওয়া বৃহত্তম জন গোষ্ঠীর মধ্যে চলা ট্রায়ালও বন্ধ হচ্ছে। তবে এই ভ্যাকসিন নেওয়ায় স্বেচ্ছাসেবকের শরীরে ঠিক কি ধরণের প্রতিক্রিয়া হয়েছে সেটা ভেঙ্গে বলেনি অ্যাস্ট্রোজেনেকা।

আরও পড়ুনঃ শব্দের থেকে ৬ গুণ গতির মিসাইল বানিয়ে বিশ্বের দরবারে চতুর্থ এখন ভারত

কিন্তু এই একই ভ্যাকসিনের ভারতে চলা ট্রায়াল এখনই বন্ধ করছেনা সিরাম ইন্সটিটিউট অফ ইন্ডিয়া। বুধবার নিজেদের বিবৃতিতে সিরাম ইন্সটিটিউট লিখেছে, “আমরা ব্রিটিশ ট্রায়ালের বিষয়ে কোনও মন্তব্য করতে পারবনা। পরিস্থিতি পর্যালোচনা করা হচ্ছে । খুব শিগগিরিই নতুন করে শুরু হবে ট্রায়াল আশা করা যায়। এবং ভারতীয় ট্রায়ালে এখনও পর্যন্ত কোনও বাধার সম্মুখীন হতে হয়নি, ফলে এই ট্রায়াল চলবে।”

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন কী পরিবর্তন আসতে চলেছে মেট্রো পরিষেবায়!

ভারতে করোনা আক্রান্তের সংখ্যার বিচারে দ্বিতীয় স্থান, কিছু সময়ের ব্যবধানে

Covaxin trial

আর কিছু সময়ের ব্যবধানে ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ব্রাজিলকে ছাড়িয়ে যাবে। এই রকম তথ্য তালিকা সামনে আসতেই মানুষের মধ্যে এক আতঙ্কের ছবি ফুটে উঠেছে।

বেশ কিছু দিন ধরে ভারতে প্রতি দিনে আক্রান্তের সংখ্যা ৭০ – ৮০ হাজার হয়েছে। যা বিশ্বে কোনো দেশে এর আগে দেখা যায়নি। ভারতেই সব থেকে বেশি সংখ্যক দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা দেখা গেছে। আর তার পর থেকেই ভারতের বেশ কিছু স্থানে বেশি পরিমান করোনা ভাইরাসের প্রভাব দেখা গেছে।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন কী পরিবর্তন আসতে চলেছে মেট্রো পরিষেবায়!

তবে সব থেকে বেশি সংখ্যক করোনা ভাইরাসের প্রভাব দেখা গেছে আমেরিকা, ব্রাজিল ও তার পরে রয়েছে ভারত। কিছু মৃতের হার সব থেকে বেশি আমেরিকায়। দ্বিতীয় স্থানে ব্রাজিল ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে ভারত।

কিন্তু ভারতে দৈনিক আক্রান্তের সংখ্যা সব থেকে বেশি হওয়ায় মনে করা হচ্ছে যে আগামী ১ দিনের মধ্যেই ভারত ব্রাজিলকে ছাড়িয়ে যাবে। কারণ ব্রাজিলে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ৪,১২৩,০০০ ও ভারতে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪,১১৩,৮১১।

তবে এই ভাবে বাড়তে থাকলে আগামী কিছু দিনের মধ্যেই ভারত করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের নিরিখে বিশ্বে প্রথম স্থান নেবে।

আরও পড়ুনঃ রাজ্যে ফের শিক্ষক নিয়োগ হতে চলেছে, শীঘ্রই টেটের বিজ্ঞপ্তি

১ নভেম্বরেই কি আমেরিকার বাজারে আসছে করোনা ভ্যাকসিন! জেনে নিন

Covaxin trial

ওয়াশিংটনঃ ১ নভেম্বরেই কি আমেরিকার বাজারে চলে আসবে করোনা ভ্যাকসিন? ট্রাম্প প্রশাসনের এক নির্দেশিকাকে ঘিরে জোরালো হয়েছে এই জল্পনা।

ওই নির্দেশিকায় আমেরিকার সবকটি প্রদেশকে বলা হয়েছে, নভেম্বরের ১ তারিখ থেকে করোনা ভ্যাকসিন সরবরাহ ও বন্টনের জন্য তৈরী থাকতে। মার্কিন ফুড অ্যান্ড, ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ইঙ্গিত দিয়েছে যে, ট্রায়াল পর্ব শেষ হওয়ার আগেই জরুরি ভিত্তিতে বাজারে ভ্যাকসিন আনার অনুমতি দেওয়া হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ শুধুমাত্র গরম জলেই ১২ কেজি পর্যন্তও ওজোন কমান!

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন (সিডিসি)-এর অধিকর্তা রবার্ট রেডফিল্ড গত ২৭ তারিখ একটি চিঠির মাধ্যমে ভ্যাকসিন বন্টন কেন্দ্রের আবেদনপত্র চেয়ে সকলের কাছে আহ্বান জানান।

প্রথম কাদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে! ট্রাম্প প্রশাসনের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, জরুরি পণ্যের সঙ্গে যুক্ত কর্মী, নিরাপত্তাকর্মী, প্রবীণ নাগরিক ও বিপদসীমায় থাকা মানুষজন এদের প্রথম করোনা ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

আরও পড়ুনঃ মোবাইল পরিষেবার খরচ বাড়তে চলেছে, ইঙ্গিত দিলেন সুনীল মিত্তল

মৃত্যু হওয়ার ২ দিন পরেও ভেন্টিলেটরে করোনা আক্রান্তের দেহ!

Nursing Home

কলকাতাঃ করোনা আক্রান্ত রোগীর মৃত্যুর ২ দিন পরেও ভেন্টিলেটরে দেহ রেখে দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। করোনা রিপোর্ট পজিটিভ কিনা, তা নিয়েও প্রশ্ন মৃতের পরিবারে। মৃতের পরিবার কড়েয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করেছে। মৃত্যুর সময় জানতে মৃতদেহের ময়নাতদন্তের নজরবিহীন সিদ্ধান্ত। অভিযোগ পার্ক সার্কাসের এক নার্সিংহোমের বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুনঃ Unlock4-এ নতুন নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের

যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করে নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষের। যাঁর মৃত্যুকে ঘিরে এই অভিযোগ উঠেছে, তাঁর নাম সবর আলি, বাড়ি হুগলীর চণ্ডীতলায়। গত ২৫ অগাস্ট শ্বাসকষ্টের কারণে তাঁকে ভর্তি করে পার্ক সার্কাসের স্বস্তিক সেবা সদন নার্সিংহোমে। ভর্তির দিন থেকেই তাঁকে ভেন্টিলেটরে রাখা হয়।

আরও পড়ুনঃ দায়িত্বহীন ব্যক্তিরা ভারতে COVID-19 মহামারী বাড়াচ্ছে দাবী ICMR-এর

Unlock4-এ নতুন নির্দেশ কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের

new-rules-of-union-home-ministry

নয়াদিল্লিঃ করোনার জেরে সামাজিক নানা অনুষ্ঠান চলছে সামাজিক দূরত্ব মেনে। অনুষ্ঠানে নিমন্ত্রিতদের সংখ্যা বেঁধে দিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। এবারেই সেই নিয়ম বহাল রইলো।

শনিবারের প্রকাশিত গাইডলাইনে স্পষ্ট জানানো হয়েছে যে, বিয়ের ক্ষেত্রে সর্বাধিক জমায়েত হতে পারে ৫০ জনের। শেষকৃত্যে সংখ্যাটা ২০। এই নিয়ম আপাতত ২০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত বজায় থাকবে।

আরও পড়ুনঃ গতকাল গভীর রাতে আগুন বড়বাজারে

কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক বিবৃতিতে জানালো, আনলক ৪ পর্বে মেট্রো পরিষেবা চালু হতে চলেছে। শুধুমাত্র তাই নয়, সামাজিক, শিক্ষামূলক, সাংস্কৃতিক, ধর্মীয় ও বিনোদন জমায়েতে ছাড় দেওয়া হচ্ছে ২১ সেপ্টেম্বর থেকে। এই ধরণের অনুষ্ঠানে সর্বাধিক ১০০ জন মানুষ জমায়েত করতে পারবেন। বাধ্যতামূলকভাবে সঙ্গে রাখতে হবে স্যানিটাইজার, গ্লাভস ও মাস্ক। ৩০ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত কন্টেইনমেন্ট জোনে চলবে লকডাউন। এই পর্বেও স্কুল বন্ধ থাকেছে।

আরও পড়ুনঃ কাশ্মীরে জঙ্গিদের সঙ্গে কেন্দ্রীয় নিরাপত্তা বাহিনীর রাতভোর চললো গুলির লড়াই

দায়িত্বহীন ব্যক্তিরা ভারতে COVID-19 মহামারী বাড়াচ্ছে দাবী ICMR-এর

mask

ভারতের করোনা মহামারী দিন দিন ভায়াবহ রূপ ধারন করছে। প্রতিদিন এখন ৭০ হাজারেরও বেশি মানুষ কোভিড-এ আক্রান্ত হচ্ছে। রাজ্য ভেদে কিছু রাজ্যে কম আর কিছু রাজ্যে বেশি। কিন্তু কম বেশি করে এই রোগকে থামাতে পারছে না বিজ্ঞান জগৎ। আর এই ভাবে চলতে থাকলে ভ্যাকসিন আশার আগেই লক্ষ লক্ষ মানুষ মারা যাওয়ার সম্ভবনা রয়েছে।

মঙ্গলবার দিন ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ(ICMR) এর ডিজি ডঃ বলরাম ভার্গব বলেন যে, দায়িত্বজ্ঞানহীন মানুষেরা যারা কোভিড-১৯ বিস্তার বন্ধ করার যে নিয়ম রয়েছে তা অনুসরণ করছে না তারাই দেশে করোনা ভাইরাসকে মহামারীর রুপ দিতে সাহায্য করছে।

আরও পডুনঃ মোবাইল পরিষেবার খরচ বাড়তে চলেছে, ইঙ্গিত দিলেন সুনীল মিত্তল

একইভাবে ডঃ রমন কুমার বলেন, আমাদের কাছে অনেক তথ্য রয়েছে যেখানে দেখা গেছে যে, মাস্ক ব্যবহার কোভিড-১৯ এর প্রতিরোধে মুখ্য ভূমিকা পালন করেছে।

দেশের স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, কোভিডে মোট আক্রান্ত হয়েছে ৩১.৬৭ লক্ষ ও মঙ্গলবার দিনের শেষে দেখা গেছে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছে ৬০,৯৭৫ জন।

আরও পড়ুনঃ শুধুমাত্র গরম জলেই ১২ কেজি পর্যন্তও ওজোন কমান!

বড় সুখবর! স্পুটনিক ভ্যাকসিন নিয়ে ভারত-রাশিয়া আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ

successful test of covid-19 in america vaccine will be available at the end of year

জল্পনার অবসান ঘটলো। স্পুটনিক ভ্যাকসিন নিয়ে রাশিয়া-ভারতের আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ শুরু হল। সুত্রের খবর, মঙ্গলবার সকালেই রাশিয়ান প্রতিনিধি ভারত সরকারের সঙ্গে রাশিয়ার কোভিড ভ্যাকসিন স্পুটনিকের তথ্য নিয়ে আনুষ্ঠানিক যোগাযোগ স্থাপন করেছে।

কয়েকদিন ধরেই মস্কোর ভারতীয় দূতাবাসের তরফে Gamaleya Research Institute ও Russian Defence Ministry-এর কথাবার্তা চালানো হচ্ছিল এই ভ্যাকসিন নিয়ে। ট্রায়াল ও কার্যকারিতা সংক্রান্ত তথ্য চাওয়া হয়েছিল।

আইসিএমআর ও বায়োটেকনোলজি ডিপার্টমেন্টের তরফেও তথ্য চাওয়া হয় ভ্যাকসিনটির সম্পর্কে। সুত্রের খবর সেই তথ্য এদিন বিনিময় হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ করোনা অতিমারীর শেষ কবে, জানালো হু

রাশিয়া বেশ কিছুদিন ধরে দাবি করছিল, যে দেশগুলিকে রাশিয়া ভ্যাকসিনের ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার দিচ্ছে তার মধ্যে রয়েছে ভারতও।

করোনার ভ্যাকসিন কবে আসছে এই নিয়ে যখন সারা বিশ্ব দুশ্চিন্তায়, তখন বাজিমাত করলো রাশিয়া। ১১ অগাস্ট মঙ্গলবার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন জানান, এই ভ্যাকসিনকে তাঁর স্বাস্থ্যমন্ত্রক অনুমোদন দিয়েছে। এই অনুমোদন ভ্যাকসিনটি প্রথম দেওয়া হয় রুশ প্রেসিডন্টের মেয়ের দেহে।

আরও পড়ুনঃ মাটি খুঁড়তেই বেরিয়ে এল শিব লিঙ্গ, মহাদেবের দর্শনে নেমেছে মানুষের ঢল

করোনা অতিমারীর শেষ কবে, জানালো হু

corona pandemic

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থা হু বিশ্ববাসীকে আশার দিশা দেখালো। বিশ্বজুড়ে চলা করোনা মহামারী কবে শেষ হতে পারে তা জানালো হু-এর প্রধান তেদ্রস আধানম গেব্রেসুস। বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার আশা, আগামী ২ বছরের মধ্যেই বিশ্ব থেকে বিদায় নেবে করোনা। এই মহামারীর অবসান হবে ২ বছরের মধ্যেই।

গেব্রেসুসের কথায়, করোনা মহামারী হল একটি শতাব্দীর স্বাস্থ্য সঙ্কট। ১৯১৮ সালের ফ্লু-এর থেকে বেশি তাড়াতাড়ি করোনা ছড়িয়ে পড়েছে। এর কারণ গ্লোবালাইজেশন বা বিশ্বায়ন। কিন্তু এখন এই মহামারী আটকানোর প্রযুক্তি রয়েছে, যা ১০০ বছর আগে ছিল না।

আরও পড়ুনঃ আদা নিয়মিত সেবনে কমবে হৃদরোগের সম্ভাবনা, জেনে নিন বিস্তারিত

হু-এর প্রধান বলছেন যে, আশা করছি যে ২ বছরের কম সময়ের মধ্যেই এই মহামারীর অবসান ঘটবে। যদি আমরা খুব জোরদার চেষ্টা করি। ১৯১৮ সালের মহামারী শেষের আগেই করোনার অবসান ঘটতে পারে।

আরও পড়ুনঃ আগে ছিল বাঘ, এখন বেড়াল, করোনা সম্পর্কে কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

অমিত শাহ-এর শারীরিক পরিস্থিতি স্থিতিশীল! কী জানালেন ডাক্তাররা

amit shah

নয়াদিল্লিঃ চলতি মাসের ২ তারিখে অমিত শাহ-এর করোনা পজিটিভ এসেছিল। তিনি সে কথা নিজেই ট্যুইট করে জানিয়েছিলেন। তিনি লিখেছিলেন করোনার প্রাথমিক লক্ষণ দেখার পরই তিনি টেস্ট করিয়েছিলেন। তারপর রিপোর্ট পজিটিভ আসে তার। আমার শরীর ঠিকই আছে, কিন্তু হাসপাতালে ভর্তি হচ্ছি চিকিৎসকের পরামর্শে। গত কয়েকদিন আমার সংস্পর্শে যারা এসেছিলেন, তাঁদের অনুরোধ করছি দয়া করে নিজেকে আইসোলেট করে পরীক্ষা করান।

এখন করোনা মুক্ত কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আমিত শাহ। তাঁর করোনা রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। একথা তিনি নিজেই ট্যুইট করে জানিয়েছেন। তিনি দিল্লির কাছে গুরগাঁও-এর বেসরকারি মেদান্ত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। তিনি ট্যুইট করে লিখেছেন, আজ আমার করোনা টেস্ট রিপোর্ট নেগেটিভ এসেছে। ঈশ্বরকে অনেক ধন্যবাদ এবং যারা আমাকে ও আমার পরিবারকে শুভেচ্ছা জানিয়ে আশীর্বাদ করেছেন তাদের প্রতি আন্তরিক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি।

আরও পড়ুনঃ আবার উত্তাল শ্রীনগর, জঙ্গি হামলায় মৃত ২

চিকিৎসকের পরামর্শে হোম আইসোলেশনে থাকবো আরও কদিন। আমি মেদান্ত হাসপাতালের চিকিৎসক ও প্যারামেডিক্যাল কর্মীদের ধন্যবাদ জানাই। তাঁরা আমাকে করোনার বিরুদ্ধে লড়াই করতে সাহায্য করেছেন এবং আমার চিকিৎসা করেছেন।

আরও পড়ুনঃ আগে ছিল বাঘ, এখন বেড়াল, করোনা সম্পর্কে কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

আগে ছিল বাঘ, এখন বেড়াল, করোনা সম্পর্কে কি বলছেন বিশেষজ্ঞরা

Covaxin trial

এ বছরের শুরু থেকেই যেন এক ভয়াবহ বিপদের সন্মুখিন হতে হয় সমগ্র মানব প্রজাতিকে। করোনা ভাইরাসের কারনে প্রতি মুহুর্তেই মানুষ মারা গেছে। এই ভাইরাসের কারনে বিশ্বের প্রায় প্রতিটি দেশই কম বেশি প্রভাবিত হয়েছে। মনে করা হয়, যার শুরুটা হয়েছিল চিনের উহান প্রদেশের একটি বাজার থেকে।

দেশে বর্তমানে যে হারে করোনা ভাইরাস মানুষকে আক্রান্ত করে চলেছে, সেই হারে মানুষের মৃত্যু হচ্ছে না বলে দাবি বিশেষজ্ঞ মহলের। এই মহামারীর শুরুর দিকে যে হারে মানুষের প্রাণ কেড়ে নিচ্ছিল তা এখন আর হচ্ছে না। বয়স্ক মানুষের করোনা হলেই আগে মারা যেত দু’ই থেকে তিন দিনের মধ্যেই। তবে এখন বয়স্ক মানুষের মধ্যে মৃত্যুর হার কমে গেছে। এমনকি ভেন্টিলেসনেরও দরকার পড়ছে না।

আরও পড়ুনঃ স্ট্রেস কমাতে রোজ খান এই ৫টি খাবার

তাই বিজ্ঞানীরা আশাবাদী এই মহামারী যে গতিতে ছড়িয়ে পড়েছিল সেই গতিতেই আবার চলে যাবে। এখন যে হারে মানুষ আক্রান্ত হয়ে চলেছে সেই হারে মৃত্যু হচ্ছে না আর। তাই ইতালির এক বিক্ষ্যাত সংক্রমক রোগ নিশেষজ্ঞ মেটও বাশেট্টি বলেন, পূর্বে করোনা ছিল জঙ্গলের বাঘ, আর এখন বিড়াল হয়ে গেছে।

ভারতে করোনায় মোট আক্রান্ত ২৪,৬১,১৯০ জন। সুস্থ হয়েছে ১৭,৫১,৫৫৫ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ৪৮,০৪০ জন।

আরও পড়ুনঃ এবার BDO, SDO-দের কাজের মুল্যায়ন করবেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী