সলমন খানের পরিবারে নেমে এলো শোকের ছায়া।

সমগ্র বিশ্ব তথা ভারতবর্ষে করোনার ফলে মানুষ মরছে প্রতিদিন। এক চরম সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে ভারতের মানুষ। এই সংকটময় সময়ে সলমন খানের পরিবারে নেমে এল শকের ছায়া। মাত্র ৩৮ বছর বয়সী আবদুল্লাহ খান মারা গেলেন। তিনি সম্পর্কে সলমন খানের ভাইপো ছিলেন।

কিছু দিন আগে শ্বাসকষ নিয়ে মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন আবদুল্লাহ। কিন্তু সলমন খান ভাইপো আবদুল্লাহের অসুস্থতার খবর পেয়ে বান্দ্রার লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু সোমবার তাঁর আর শেষরক্ষা করতে পারে না ডাক্তার।

শ্বাসকস্ট নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ায়, মনে করা হয় তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর। যদিও পরিবার সূত্রে জানা যায়, আবদুল্লাহ বহু দিন ধরে ফুস্ফুসের সমস্যায় ভুগছিলেন। জানা যায় হার্টের ও ডায়াবেটিসের সমস্যার কথাও। অবশেষে মৃত্যু হয় তার।

ভাইপোর মৃত্যুতে শোকাহত সলমন খান। সোশ্যাল মিডিয়াতে পুরানো কিছু ছবি পোস্থ করেন “এছাড়া জারিন খান ও ডেইজি শাহ শোক প্রকাশ করেন।

আবদুল্লাহর বডি বিল্ডিংয়ের শখ ছিল। তিনি সলমন খানের ‘বিংস -হিউম্যান ‘ সংস্থার সাথেও যুক্ত ছিলেন। দেশের এই ভয়াবহ বিপদের মুখেই শোকের ছায়া খান পরিবারে।

Leave a Comment