বাড়িতে বসে কিভাবে তৈরি করবেন ফ্রায়েড মোমো

বাঙালিরা এখন মোমোর প্রেমে মুগ্ধ। রাস্তার ধারে হোক বা ছোট ঠেলায় কিংবা বড় রেস্তরাঁয়, মোমো এখন চাই সবার। দশ বছর আগে পর্যন্তও মোমো এর এত চাহিদা ছিলনা। তবে আজকের ছবি একেবারে আলাদা। বিকালের টিফিন হোক বা অফিসের কাজে, মোমো পেলে আর কি চাই!

আগে মোমো শুধুমাত্র রেস্তরাঁয় মিলত স্টিম মোমো, সঙ্গে স্যুপ আর ঝাল চাটনি। মোমোই ছিল তিব্বতের অথেন্টিক ডিশ। আর আজকাল মোমো কে ঘিরে চলছে নানা রকম এক্সপেরিমেন্ট। হরেক রকম স্বাদের ও হরেক রকম নামের মোমো পাওয়া যায় এখন কলকাতায়। চকলেট মোমো থেকে শুরু করে কবিরাজি মোমো সবই এখন পড়ছে বাঙালির পাতে। এইরকমই একটা এক্সপেরিমেন্টাল পদ নীচে দেওয়া হল!

উপকরণঃ

ময়দাঃ ২ কাপ চিকেন কিমাঃ ৪০০ গ্রাম
নুনঃ স্বাদ মতো গোলমরিচ গুঁড়োঃ ১ টেবিল চামচ
রসুন বাটাঃ ২ টেবিল চামচ ডিমঃ চারটে
কর্নফ্লেক্সঃ ২৫০ গ্রাম সাদা তেলঃ ২৫০ গ্রাম
পেঁয়াজ কুচিঃ আধ কাপ পেঁয়াজ শাক কুচিঃ আধ কাপ
সয়া সসঃ ২ টেবিল চামচ

প্রণালীঃ

ময়দায় সামান্য নুন মিশিয়ে একটা ডো বানিয়ে নিন। ময়দা মাখা যেন বেশি শক্ত না হয় সেদিকে নজর রাখতে হবে। এরপর মাখা ময়দার গায়ে সাদা তেল মাখিয়ে নিন ও ১৫-২০ মিনিট মসলিন কাপড় দিয়ে ঢেকে রেখে দিন। এরপর একটি পাত্র নিন ও তাতে চিকেন কিমা নিয়ে তাতে একে একে পেঁয়াজ কুচি, রসুন বাটা, সয়া সস, পেঁয়াজ শাক কুচি, গোল মরিচ গুড়ো ও নুন মিশিয়ে সতে করে নিন হালকা তেল এ। এবার ময়দার ডো টা নিন এবং ছোট ছোট করে লেচি করে নিয়ে লুচির মত করে পাতলা করে বেলে নিন। এবার তাতে চিকেনের পুর দিয়ে পুলি পিঠের আকার বা অন্য আকারও দিতে পারেন। একই ভাবে বাকি মোমো গুলো গড়ে নিন। এরপর আরেকটি পাত্র নিন তাতে ডিম ফাটিয়ে তাতে নুন আর সামান্য গোল মরিচ গুড়ো মেশান। এরপর মোমো গুলি ডিমে ডুবিয়ে কর্নফ্লেক্সের গুড়োতে মাখিয়ে নিন। করাইয়ে তেল গরম করে মোমো গুলি ডোবা তেলে ভেজে নিন। এরপর মেইয়নিজ বা মোমো এর ঝাল চাটনির সঙ্গে গরম গরম পরিবেশন করুন।

Leave a Comment