লকডাউন কি ফের বাড়তে চলেছে? জানা যাবে বৈঠকের পর

Narendra Modi

নয়াদিল্লিঃ আগত মাসের তিন তারিখ পর্যন্ত লকডাউনের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল ভারত সরকার। সেইরকম সিদ্ধান্তই জানিয়েছিল কেন্দ্রীয় সরকার। কিন্তু যে হারে বেড়ে চলেছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা এই অবস্থা তে লকডাউনই হল একমাত্র পথ এই মহামারীকে ঠেকিয়ে রাখার। এদিকে দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২০ হাজার পার হয়ে গেল।

আরও পড়ুনঃ বান্দ্রা স্টেশনে লকডাউন অমান্য করায় পুলিশ লাঠি চার্চ করলো কর্মীদের উপর

সব দিকের চিন্তা করেই আগামী ২৭ এপ্রিল প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যেমে সমস্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দের সাথে বৈঠক করবেন। সেই বৈঠকে থাকতে পারেন বাংলার মুখ্যামুন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও। সেই বৈঠকের পরিপেক্ষিতে লকডাউন উঠিয়ে দেওয়া হতে পারে আবার বাড়িয়ে দিতেও পারে।

আরও পড়ুনঃ ভারতের পঞ্চাশ শতাংশ ছড়িয়ে পড়লো করোনা

বাংলায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৪০০ পার হয়েছে। প্রতিদিন ২০ থেকে ৩০ জন মানুষ কোভিড-১৯ -এ আক্রান্ত হচ্ছে রাজ্যের বিভিন্ন জায়গা থেকে।

দেশের পরিস্থিতি যে একেবারেই হাতের মধ্যে নেই, তা স্পষ্ঠভাবে বুঝতে পারছে মানুষ।

তাই আগামী বৈঠকেই নির্ধারিত হবে মে মাসের ভবিষ্যৎ।

স্বাস্থ্য কর্মীদের হামলা করলেই হবে ৭ বছরের জেল ও জরিমানা

করোনা ভাইরাসের কারনে সমগ্র দেশ এখন লকডাউনের মধ্যে পড়ে রয়েছে। বাড়ির বাইরে কোথাও যাওয়ার নির্দেশ নেই। এই পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্য কর্মী, সাফাইকর্মী, সুরক্ষা বিভাগ ও কিছু বিভাগ ছাড়া সব ধরণের ব্যবসা, অফিস বন্ধ।

এর মাঝেই বার বার উঠে এসেছে বেশ কিছু নির্মম ঘটনা। যেখানে পুলিশ কর্মী ও স্বাস্থ্য কর্মীদের উপর অত্যাচারের ছবি ফুটে উঠেছে। এই করোনা ভাইরাসের হাত থেকে মানুষকে তথা ভারতবাসীকে বাঁচাতে পারে স্বাস্থ্য কর্মী তাদের চিকিৎসার মাধ্যমে। কিন্তু সমাজের কিছু সংখ্যক মানুষ আছে যারা এই স্বাস্থ্য কর্মীদের উপর হামলা করছে, আঘাত করছে। সেই দেখেই সরকার একটি করা পদক্ষেপ নিয়েছে।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন করোনা ভাইরসের ৮ টি অজানা তথ্য

সরকারের সেই পদক্ষেপগুলি হলঃ

* স্বাস্থ্য কর্মীদের কোনোভাবে হামলা করলে তার শাস্তি হিসাবে ৬ মাস থেকে ৭ বছর পর্যন্ত জেল হতে পারে।
* এর শাস্তি হিসাবেও ১ লাখ থেকে ৫ লাখ পর্যন্ত জরিমানা দিতে হতে পারে।

আরও পড়ুনঃ করোনা ভাইরাস নিয়ে উঠে এল নতুন তথ্য

করোনা মোকাবেলায় রাস্তায় নেমে মাইকিং মুখ্যমন্ত্রীর

mamata-banerjee-visiting-various-place-in-kolkata

রাজ্যের মানুষের মনে করোনা পরিস্থিতিতে লড়াই করার জন্য বার্তা পৌঁছে দিতে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় নিজেই মাইকিং করলেন। কলকাতার বিভিন্ন স্থানে ঘুরে ঘুরে বার্তা পৌছালেন তিনি।

বেশ কিছু দিন ধরে রাজ্যে করোনা ভাইরাসের আক্রমণ বেড়েই চলেছে। সেই পরিস্থিতিতে মোকাবেলা করার জন্য ও মানুষকে সাবধান করার জন্যই এই পদক্ষেপ নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। রাজ্যে কোভিড- ১৯ আক্রান্তের সংখ্যা ৪২৩ জন। মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ১৫।

তিনি কলকাতার বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শন করে দেখেন। সাথে হ্যান্ডগ্লাবস ও মাস্ক বিতরণ করেন নিত্য দিনের কর্মীদেরকে। সাফাইকর্মীদেরকে স্যানিটাইজ করার ব্যাপারে অবগত করেন।

দুই সাধু ও ড্রাইভারকে পিটিয়ে হত্যা মহারাষ্ট্রে

saint-death-case-in-maharastra

মহারাষ্ট্রঃ করোনার জেরে এই লকডাউনের মধ্যেই ঘটে গেল এক ভয়াবহ দুর্ঘটনা। গুরুদেবের শেষকৃত্যে যোগ দিয়ে গিয়ে দুই শিস্য মারা পড়ল। গত ১৬ এপ্রিল মহারাষ্ট্রের পালঘরে রাতের অন্ধকারে চোর সন্দেহ করে ৩ জন ব্যক্তিকে পিটিয়ে হত্যা করলো গ্রামবাসী। এই হত্যার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই চারিদিকে প্রতিবাদের ঝড়।

এরইমধ্যে এই কাণ্ডের সাথে যুক্ত ১১০ জন গ্রামবাসীকে গ্রেফতার করল পুলিশ। তাদের মধ্যে ৯ জন নাবালককে কিশোর সেল্টার হোমে রাখা হয়েছে। আর ১০১ জন গ্রামবাসীকে আগামী ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত পুলিশি হেফাজতে রাখা হয়েছে।

কলকাতায় আগামী সাত দিন বৃষ্টির সম্ভবনা

today weather in kolkata

গতকাল থেকে শুরু হওয়া ঝড়, বর্জ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টি সহজে থামবে না বলেই জানা যাচ্ছে। আগামী সাত দিন ধরে এই ভাবে বৃষ্টি চলতে থাকবে। তবে সব দিন বর্জ্রবিদ্যুৎ বা ঝড়ের সম্ভবনা না থাকলেও বৃষ্টির সম্ভবনা রয়েছে। কলকাতা সহ সমগ্র রাজ্য জুড়ে রয়েছে সেই সম্ভবনা। রাজ্যের বিভিন্ন জায়গাতে রয়েছে ভারী বৃষ্টির সম্ভবনা।

করোনা ভাইরাসের কারনে এমনিতেই মানুষের মধ্যে এক ভয়ের উন্মেষ জন্মেছে। তার মধ্যেই নিন্মচাপের কারনে শুরু হয়েছে বৃষ্টি।

আরও পড়ুনঃ হৃষিকেশের গুহায় পাওয়া গেল ছয় বিদেশি পর্যটককে

সোমবার মধ্য রাতে শীলা বৃষ্টি হওয়ার ফলে আম চাষীদের ক্ষতি হয়ে গেছে। শীলা বৃষ্টির ফলে আম ঝরে যায়। উৎপাদনে পরিমান কমে যায়।

চলে গেলেন ‘টম অ্যান্ড জেরি’-র পরিচালক জিন ডিচ

Gene Deitch died

আমেরিকাঃ শেষ হয়ে গেল একটা বড় অধ্যায়, স্তব্ধ হয়ে গেল শৈশবের বুহু দিন। চলে গেলেন জনপ্রিয় কার্টুন ‘টম অ্যান্ড জেরি’ সিরিজের অস্কার বিজয়ী পরিচালক জিন ডিচ। তিনি ‘Popeye the Sailor’ সিরিজেরও কিছু এপিসোড পরিচালনা করেছিলেন। শুধুমাত্র পরিচালক নন, তিনি একধারে ছিলেন ইলাস্ট্রেটর, অ্যানিমেটর, প্রযোজকও। প্রাগে, তাঁর নিজের বাড়িতেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৯৫। ১৯৬০ সালে ডিচ-এর ছবি ‘মুনরো’ সেরা অ্যানিমেটেড শর্ট ফিল্ম হিসাবে অস্কার জিতে নেয়। ১৯৬৪ সালের তাঁর ‘হেয়ারস নুডনিক’ ও ‘হাউ টু অ্যাভয়েড ফ্রেন্ডশিপ’ এই দুটো ছবি অস্কার-এর জন্য মননীত হয়।

আরও পড়ুনঃ ত্বক ঝলমলে কিভাবে করবেন, চট করে দেখে নিন

১৯২৪ সালের ৮ আগস্ট শিকাগোতে জন্ম হয় জিন ডিচের। তিনি ১৯৫৯ সালে প্রাগ-এ আসেন। তাঁর ইচ্ছা ছিল ১০ দিন থাকবেন, কিন্তু সেখানেই তিনি প্রেমে পড়ে যান তাঁর ভবিষ্যতের স্ত্রী ডেনকা-র, তারপর আর শিকাগো ফেরা হয়না ডিচের, ওখানেই সংসার পাতেন তিনি। ২০০৪ সালে অ্যানিমেশনে লাইফটাইম অ্যাচিভমেন্ট-এর জন্য ভূষিত হন তিনি উইনসর ম্যাককে পুরষ্কারে।

আরও পড়ুনঃ জেনে নিন কীভাবে ব্যায়াম মস্তিষ্কের জন্য ভাল

হৃষিকেশের গুহায় পাওয়া গেল ছয় বিদেশি পর্যটককে

Three foreign tourists were found in the Hrishikesh.

হৃষিকেশঃ করোনা মোকাবিলায় দেশ জুড়ে চলছে লকডাউন। চলছে নানারকম কড়াকড়ি। বাড়িতে থাকুন এবং সামাজিক দুরত্ত বজায় রাখুন বারবার বার্তা দেওয়া হচ্ছে। কিন্তু এই পরিস্থিতিতে ছয় বিদেশি পর্যটক রাত কাটাচ্ছিলেন হৃষিকেশে। সম্প্রতি তাদের হৃষিকেশের এক আশ্রমে কোয়ারেন্টিনে পাঠালো পুলিশ।

পুলিশ সুত্রে খবর, ওই পর্যটকরা ভিন্ন ভিন্ন দেশের। কিন্তু ২৪ মার্চ থেকে তারা একইসাথে থাকছিলেন গুহার মধ্যে। আমেরিকা,ইউক্রেন, ফ্রান্স, তুরস্ক, নেপাল থেকে আসা ওই পর্যটকদের পাঠানো হয়েছে হৃষিকেশের স্বর্গ আশ্রমে। সেখানে তাদের ১৪ দিন রাখা হবে কোয়ারেন্টিনে। তবে এখনও অবধি কারও শরীরে সংক্রমনের লক্ষন দেখা যায়নি।

আরও পড়ুনঃ পুলিশ সেজে হত্যালীলা, ১৬ জন মৃত

এত জায়গা থাকতে গুহায় কেন? এক পর্যটক বললেন লকডাউন ঘোষণার আগেই বেড়াতে আসেন তাঁরা। কিন্তু তারপর সব বন্ধ হয়ে যায়। হোটেল-এ থাকার পুঁজি ও শেষ হয়ে আসে তাদের। তাই খাবারের টাকাটুকু বাঁচিয়ে রেখে হোটেল ছাড়েন তাঁরা। তারপরই তাদের বাসস্থান গুহা।

১৫ এপ্রিল লকডাউন উঠে যাবে এই আশাতেই বুক বেঁধেছিলেন তাঁরা। কিন্তু মেয়াদ ৩ মে পর্যন্ত বেড়ে যাওয়ায় পুঁজিতে টান পড়ে। এমন অবস্থায় গুহায় থাকা ছাড়া কোনো পথ ছিলনা। জানালেন এক পর্যটক। শুধুমাত্র এনারা নন প্রায় ৭০০ বিদেশি পর্যটক আটকে রয়েছেন হৃষিকেশে। তাঁরা নাকি একটি ওয়েবসাইটও লঞ্চ করেছে লকডাউনের মাঝে ভারতে আটকে পড়া বিদেশিদের সাহায্যের জন্য।

আরও পড়ুনঃ লকডাউনে বিদ্যুতের বিল কিভাবে মেটাবেন, দেখে নিন

দেশে করোনায় আক্রান্ত ১৭ হাজারের বেশি

coronavirus India

ভারতের মধ্যে বেশ কিছু জায়গার নাম উঠে এসেছে যেখানে করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা সব থেকে বেশি। সেই তালিকাতে রয়েছে মহারাষ্ট্র, দিল্লি, গুজরাত, মধ্য প্রদেশ, রাজস্থান, তামিল নাডু, উত্তর প্রদেশ -এর নাম।

আবার মৃতের তালিকা দেখলে উঠে এসেছে মহারাষ্ট্র, দিল্লি, গুজতার,মধ্য প্রদেশ -এর নাম যেখানে সব থেকে বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছে। সমগ্র দেশে মোট করোনায় আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা ১৭,২৬৫। তার মধ্যে ২,৫৪৭ জন মানুষ সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছে ও ৫৪৩ জন মানুষ মারা গেছে।

আরও পড়ুনঃ লকডাউনে এই সেক্টরগুলিতে কাজ চালুর নির্দেশ দিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

সবথেকে বেশি করোনায় আক্রান্ত মহারাষ্ট্রে, ৪,২০৩ জন ও মারা গিয়েছে ২২৩ জন।

পশ্চিমবঙ্গে আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩৩৯ জনে। তার মধ্যে ৬৬ জন সুস্থ্য ও ১২ জনের মৃত্যু হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ কড়া নজরদারি চলবে হটস্পট এলাকায় জানালেন প্রধানমন্ত্রী

পুলিশ সেজে হত্যালীলা, ১৬ জন মৃত

canadian-police-officers

পুলিশের সাজে এক ব্যক্তি হত্যা লীলা চালায়। ১৬ জন মারাযায়। এই মর্মান্তিক ঘটনা ঘটেছে কানাডার নোভা স্কোটিয়া অঞ্চলে। বাড়ির ভিতরে প্রবেশকরে মানুষকে মারতে শুরু করে সেই বন্দুকধারী ব্যাক্তি। এটি কানাডার ইতিহাসে এক ভয়াবহ ঘটনা।

এই ঘটনাতে এক জন পুলিশ অফিসারের মৃত্যু হয়েছে। আরও মৃত দেহ পাওয়া গেছে বিভিন্ন ঘরের ভিতরে ও বাইরে। গোটা বিশ্বে করোনা ভাইরাসের কারনে লকডাউন চলছে। ঠিক তেমনই কানাডাতেও লকডাউন চলছে। তার কারনেই সব মানুষ নিজ নিজ ঘরে রয়েছে। আর তাই পুলিশ অফিসার সেজে এই হত্যালীলা চালনো হয়েছে বলে দাবি করেছে স্থানীয় পুলিশ।

আরও পড়ুনঃ অবসরপ্রাপ্ত কর্মীদের পেনশন কাটা হবে না জানালেন অর্থমন্ত্রী

পুলিশ সেই ব্যাক্তির পরিচয় খুঁজে বার করায় জানতে পারে ব্যাক্তির নাম গেব্রিয়াল ওর্টম্যান (Gabriel Wortman), বয়স ৫১ বছর।

পুলিশের তথ্য থেকে প্রথমে জানাযায় ব্যাক্তিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছিল একটি গ্যাস স্টেশনে, কিন্তু পরে সে মারা যায় বলে খবর আসে। এর আগেও একটা মর্মান্তিক ঘটনার সাক্ষী কানাডাবাসী। ১৯৮৯ সালে এই রকমই এক বন্দুকবাজের হাতে মৃত্যু হয়েছিল ১৪ জন মহিলার। তার পরেইও এই ভয়াবহ ঘটনা ঘটে রবিবার দিন। কানাডাবাসী সাক্ষী রইলো।

আরও পড়ুনঃ অভিনেতা আজাজ খান ফেসবুকে মন্তব্য করে গ্রেপ্তার

লকডাউনে এই সেক্টরগুলিতে কাজ চালুর নির্দেশ দিল স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক

একদিন আগেই জাতির উদেশ্যে ভাষণ দিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। প্রধানমন্ত্রী জানিয়েছেন বুধবার দিন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানিয়ে দেবে লকডাউনের দ্বিতীয় পর্বে কোন কোন সেক্টরে কাজ চালু হবে। সারা দেশে পুরোপুরি লকডাউনের জেরে অর্থনীতি থেমে গেছে কার্যত। এই লকডাউনের সময় যাতে দিন আনা দিন খওয়া মানুষেরা আবার কাজে যোগ দিয়ে নিজেদের পেট চালাতে পারেন তার দিকেও নজর দিতে হচ্ছে কেন্দ্রকে এর পাশাপাশি লড়াই চালাতে হচ্ছে মারণ করোনা ভাইরাসের সঙ্গে।

কেন্দ্রিয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রক জানালো, গ্রামীণ এলাকায় মাল প্রসেসিং, ম্যানফ্যাকচারিং ইউনিট, শিল্প ক্ষেত্রকে ছাড় দেওয়া হল। কেন্দ্রিয়মন্ত্রক-এর পক্ষ থেকে জানানো হল, গ্রাম্য এলাকায় কনস্ট্রাকশন কাজ চালিয়ে যাওয়া যাবে। তখনই শহরাঞ্চলে কনস্ট্রাকশন জারি রাখা যাবে যখন কর্মরত শ্রমিকরা অনসাইটেই যদি থাকেন।