প্লাজমা থেরাপির পর ভারতের প্রথম করোনা রোগী ভালো হল

corona patient recovered after plasma therapy

নয়াদিল্লিঃ দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিয়াল প্লাজমা থেরাপির প্রয়োগের ফলে ভালো ফল মেলার কথা বলার দুই দিন পরে এক করোনা রোগী ভালো হওয়ার খবর পাওয়া গেল, করোনায় আক্রান্ত হয়ে এক ৪৯ বছর বয়সের এক দিল্লিবাসী এই মাসের ৪ তারিখে দিল্লির একটি হাসপাতালে ভর্তি হয়। গায়ে জ্বর ও অন্যান্য লক্ষন গুলি সাথে নিয়েই হাসপাতাল চত্তরে পৌঁছে ছিল এই ব্যাক্তি।

আরও পড়ুনঃ ‘চিনের সাথে ব্যবসায় নারাজ গোটা দুনিয়া’ এই পরিস্থিতি আশীর্বাদ স্বরূপ ভারতের কাছে

সময়ের সাথে সাথে এই রোগীর স্বাস্থ্যের কোনো উন্নতি হচ্ছিল না। সেই পরিস্থিতিতে এই ব্যাক্তির উপর প্লাজমা থেরাপির প্রয়োগ করা হয়। কিছু দিন পরেই রোগীর স্বাস্থ্যের উন্নতি লক্ষ্য করা যায়। তার পর ১৮ এপ্রিল থেকে আর অক্সিজেনের প্রয়োজন পড়ে না।

দিল্লিতে প্রতিদিন করোনা ভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়েই চলেছে। দেখতে দেখতে দিল্লিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২৬০০ ছাড়ালো মৃতের সংখ্যা ৫০-এর বেশি।

আরও পড়ুনঃ চিনকে একঘরে করতে পরিকল্পনা আমেরিকার, চাপে চিন

চিনকে একঘরে করতে পরিকল্পনা আমেরিকার, চাপে চিন

us and china

বার বার আমেরিকা চিনকেই দোষ দিয়ে এসেছে করোনা মহামারীর জন্য। তাদের জন্যই সমগ্র বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে এই কোভিড-১৯। আর এই নিয়েই বেশ কিছু দিন ধরে আমেরিকা ও চিনের মধ্যে এক মানসিক দ্বন্দ্বের সৃষ্টি হয়েছে। তারই জেরে আমেরিকা চিনকে এক ঘরে করতে তৎপর হয়ে উঠেছে।

করোনার কারনে আমেরিকাতে খুবই খারাপ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। আক্রন্তের সংখ্যা ১০ লাখ হতে যায়। মৃতের সংখ্যা ৫৫ হাজার পার করেছে। পৃথিবীর সব থেকে ক্ষতিগ্রস্থ্য দেশ এখন আমেরিকা। প্রতি দিন ২০ থেকে ৩০ হাজার মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছে। এমত অবস্থ্যায় লক্ষ লক্ষ মানুষ চাকরি হারিয়েছে। সেই দেশে থাকা বহু ভারতীয় বেকার হয়ে পড়ছে রাতারাতি। এর ফলে দেখা দিয়েছে এক বিরাট আর্থিক মন্দা। আর এই সবের কারণ হিসাবে চিনকেই দায়ী করছে মার্কিন মুলুক।

আরও পড়ুনঃ চিনের সাথে ব্যবসায় নারাজ গোটা দুনিয়া’ এই পরিস্থিতি আশীর্বাদ স্বরূপ ভারতের কাছে

তাই বিভিন্ন পথে চিনকে সায়েস্তা করার জন্য বিভিন্ন পন্থা অবলম্বন করছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ইতি মধ্যেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট জানিয়ে দিয়েছেন যে এই সবের জন্য চিনকে শাস্তি পেতে হবে। তাদের বক্তব্য, চিন সব কিছু জানার পর সব তথ্য গোপন করেছে বিশ্ববাসীর কাছ থেকে। বিপদের মুখে ঠেলে দিয়েছে গোটা মানুবজাতিকে। ২০১৯ এর শেষ মাসে চিনে করোনা ভাইরাসের ঘটনা প্রকাশ্যে আশে। কিন্তু চিন সেই ব্যপারে কোনো মুখ খোলেনি। আর এটাই চিনের সবথেকে বড় ভুল বলে জানান মার্কিন প্রেসিডেন্ট।

সূত্রের খবর, আমেরিকা বিশ্বের বিভিন্ন দেশের সাথে কথা বলছে, আলোচনা করছে যে কিভাবে চিনকে জব্দ করা যায়। এই হালে মার্কিন বিদেশ সচিব পম্প জানিয়েছেন, আমরা বিভিন্ন দেশের সাথে কথা বার্তা চালাচ্ছি। যেভাবেই হোক চিনকে উপযুক্ত শিক্ষা দিতেই দিতে হবে।

আরও পড়ুনঃ দেখা দিল করোনার নতুন উপসর্গ, ডাক্তারদের নজর এখন পায়ের দিকে

চিন থেকে ১০ টন করোনা সামগ্রী নিয়ে শহরে নামলো উড়ান

china supply 10 ton kit to Kolkata

যাত্রী বিমান পরিষেবা বন্ধ লকডাউনে। তবে দেশের বিভিন্ন প্রান্তে জরুরি সামগ্রী পৌছে দিচ্ছে দেশের বিভিন্ন বিমান সংস্থাগুলি। সেই কাজে ব্রত হয়েছে স্পাইসজেটও। এবার সোজা চিনের সাংহাই থেকে ১০ টন করোনার চিকিৎসার সরঞ্জাম নিয়ে স্পাইসজেটের একটি কার্গো বিমান এসে পৌঁছালো কলকাতা বিমানবন্দরে।

আরও পড়ুনঃ ‘চিনের সাথে ব্যবসায় নারাজ গোটা দুনিয়া’ এই পরিস্থিতি আশীর্বাদ স্বরূপ ভারতের কাছে

শনিবার চিনের সাংহাই থেকে কলকাতা বিমানবন্দরে এসে নামে স্পাইসজেটের বিমানটি। প্রধানত মাস্ক তৈরির নানা সামগ্রী নিয়ে এসেছে সাংহাই থেকে এই বিমানটি। করোনা পরিস্থিতিতে কার্গো অপারেশনে দেশের মধ্যে অনেকই বিমানসংস্থাকে পিছনে ফেলে দিয়েছে স্পাইসজেট।

অন্যদিকে, স্পাইসজেট সংস্থার প্রায় ৫২২টি কার্গো ফ্লাইট আপাতত ৩৯৯৩ টন জরুরী সামগ্রী পৌঁছে দিয়েছে ভারতের একাধিক শহরে। লকডাউনের মধ্যে কোল্ড চেন মেডিক্যাল সাপ্লাই, ওষুধের সরঞ্জাম, ওষুধ, আইআর থার্মোমিটার, করোনা ভাইরাস র‍্যাপিড টেস্ট কিট, স্যানিটাইজার, ফেস মাস্ক, ত্রান সামগ্রী সমেত আরও অনেক জরুরী সামগ্রী স্পাইসজেটের এই কার্গো বিমান ভারতের বিভিন্ন প্রান্তে পৌঁছে দিচ্ছে।

আরও পড়ুনঃ রিলায়েন্স শুরু করলো হোয়াটসঅ্যাপ ভিত্তিক অনলাইন শপিং পোর্টাল

‘চিনের সাথে ব্যবসায় নারাজ গোটা দুনিয়া’ এই পরিস্থিতি আশীর্বাদ স্বরূপ ভারতের কাছে

this situation is good for India

নয়াদিল্লিঃ করোনার জেরে গোটা বিশ্ব এখন নাজেহাল। করোনার সাথে লড়াই করছে গোটা বিশ্ব। লকডাউন দীর্ঘ হতে থাকায় বিশ্ব অর্থনীতি ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে স্বাভাবিকভাবেই। বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, পরবর্তী সময়ে গোটা বিশ্বেই করোনা আর্থিক মন্দার আঘাত হানবে।

আরও পড়ুনঃ স্বাস্থ্য কর্মীদের হামলা করলেই হবে ৭ বছরের জেল ও জরিমানা

এই পরিস্থিতিতে চিন্তার ভাঁজ পড়লেও বিশ্ব মহলে, তবে ভারতের ক্ষেত্রে নাকি এই সময় আশীর্বাদ স্বরূপ। ঠিক এমনটাই মনে করছেন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী নীতিন গড়করি।

ইতিমধ্যেই জাপান চিন থেকে সরিয়ে নিতে যাচ্ছে মোটা অঙ্কের ব্যবসা। সেই ঘোষণাকে মাথায় রেখে নীতিন গড়করি বলেন, জাপানের সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ভারতের। তাই আশা রাখা যায় জাপান তার ব্যবসার প্রসারের ব্যপারে ভারতের কথা ভাববে। তাঁর কথায় শুধু জাপান নয় অন্যান্য দেশ গুলিও এ ব্যাপারে এগিয়ে আসবে। তাঁর মনে হয়, বিদেশি লগ্নির ক্ষেত্রে ভারত একেবারে উপযুক্ত। সস্তার জমি ও দক্ষ শ্রমিকের জন্য প্রথম তালিকায় থাকে সবসময় ভারত বিশ্ব বাজারে। সেই সুযোগ অবশ্যই কাজে লাগাবে বিদেশি সংস্থা।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের খাদ্য বিতরনের ছবি ফুটে উঠলো

পাকিস্তান সরকারের বিরুদ্ধে আন্দোলন স্বাস্থ্যকর্মীদের

160 Doctors died

পাকিস্তানে এখনও পর্যন্ত মোট ১৬০ জন চিকিৎসক আক্রান্ত হয়েছে করোনায়। সব মিলিয়ে আক্রান্ত স্বাস্থ্যকর্মীর সংখ্যা ২৫০ ছাড়িয়েছে। পিপিই সরঞ্জামের অভাবের কারণে মৃত্যু। তাই সরকার বিরোধী আন্দলনের ডাক দিয়েছে পাকিস্তানের ডাক্তাররা।

আরও পড়ুনঃ প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষা শুরু হল মহিলা বিজ্ঞানীর শরীরে

চিকিৎসক সলমন হাসিদ গ্র্যান্ড হেলথ অ্যালাইন্স নামক সংগঠনের তরফে জানাচ্ছেন, পাঞ্জাবের স্বাস্থ্যভবনের বাইরে ন’দিন ধরে ভুখা আন্দোলন চালাচ্ছেন তাঁরা।

সলমন হাসিদ বলছেন, এই মৃত চিকিৎসকরা দেশের শহিদ। তাঁদের দেওয়া হোক সেই মর্যাদা। তাঁরা একই সঙ্গে মৃত ব্যাক্তিদের পরিবারের জন্য অর্থসাহায্য দাবি করছেন।

আরও পড়ুনঃ জার্মানির উপর এখন করোনার চোখ, ২ দিনে আক্রান্ত ৭ হাজারের বেশি

পাকিস্তানে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১২,৫০০ জন। মৃত্যু হয়েছে ২৬১ জনের।

করোনার প্রভাবে কমছে দুর্গাপুজোর বাগেট, জানালেন ক্লাব কর্তারা

Maa Durga 2020

করোনা সংকটের এই সময়ে কলকাতার দুর্গাপুজোর উপর প্রভাব পড়তে চলেছে। সমগ্র দেশ এখন এই করোনা নামক মহামারীর কবলে আটকে আছে। এই পরিস্থিতি যে সহজে কাটবে না তা দেশে আক্রান্তের সংখ্যা দেখলে বোঝা যাচ্ছে। রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যাও দিন দিন বেড়েই চলেছে, থামার নাম নিচ্ছে না। এমন পরিস্থিতে কলকাতার বড়ো বড়ো ক্লাব বা সংঘগুলি মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছে। তারা নিজেদের জমা করা অর্থ পুঁজি দিয়ে মানুষের কাছে বিভিন্নভাবে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছে। তারই জেরে পুজাকর্তারা দুর্গাপুজোর বাজেট কম রাখার সিন্ধান্ত গ্রহন করেছে।

আরও পড়ুনঃ দেখা দিল করোনার নতুন উপসর্গ, ডাক্তারদের নজর এখন পায়ের দিকে

রাজ্যের বেশ কয়েকটি পুজাকমিটি রয়েছে যাদের বাজেট সব থেকে বেশি হয়ে থাকে। বিগত বছরগুলিতে সেই সব কমিটির পুজার বাজেট কোটি টাকারও বেশি ছিল। সেই সব জনপ্রিয় ও বেশি বাজেটের ক্লাবগুলি হল একডালিয়া এভারগ্রীন, চেতলা অগ্রনী, শ্রীভুমি স্পোর্টিং, ত্রিধারা সন্মেলনী, কলেজ স্কয়ার প্রভৃতি। এই সব ক্লাব ও পুজাকমিটিগুলি চলতি বছরে ৫০ শতাংশ থেকে ৯০ শতাংশ বাজেট কমিয়ে পুজা সম্পন্ন করার সিন্ধান্ত গ্রহন করেছে বলে জানা যাচ্ছে।

দুর্গাপুজার সাথে বাংলা ও বাঙালির এক নিবিড় ও অটুট সম্পর্ক রয়েছে যুগ যুগ আগে থেকেই। সময়ের সাথে সাথে দুর্গা পুজার আড়ম্বর বজায় রেখেছে এই বাংলার মানুষেরা। তবে ২০২০ সালের দুর্গাপুজা কেমন হবে তা বলা হয়তো কারো কাছে সম্ভবপর নয়।

আরও পড়ুনঃ কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের খাদ্য বিতরনের ছবি ফুটে উঠলো

কলকাতা ট্রাফিক পুলিশের খাদ্য বিতরনের ছবি ফুটে উঠলো

kolkata-traffic-police-distributed-food-in-jeams-long-sarani

করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে সমাজের যে মানুষগুলি দিন রাত লড়াই করে চলেছে তাদের মধ্যে নাম আশে পুলিশের। তাদের কারনেই লকডাউন ভালোভাবে পালন করছে মানুষ। সেই পুলিশের উপর বার বার হামলা, মারধরের মতো ঘটনা ফুটে উঠেছে দেশ জুড়ে। তবে কলকাতা পুলিশের কথা বলতেই হবে। তাদের কলকাতার গলিতে গলিতে প্রচার, মানুষতে সতর্ক করা, দিন রাত এক করে ডিউটি পালন করার মতো ঘটনা দেখেছে সমগ্র কলকাতাবাসী।

এই বার ফুটে উঠল এক অন্য ছবি। জেমস লং সরনীতে কলকাতা ট্রাফিক পুলিশকে খাদ্য দিতরন করতে দেখা গেল। দিন দুঃখী মানুষের মুখে খাদ্য তুলে দিল সাদা পোশাকের এই পুলিশ বাহিনী।

আরও পড়ুনঃ ড্রোনের সাহাজ্যে চলবে কলকাতা পুলিশের নজরদারি

করোনায় মৃতের সংখ্যা ছাড়াল পঞ্চাশ হাজার, হাহাকার অ্যামেরিকায়

coronavirus increased in america

করোনা ভাইরাসের প্রভাব এখন প্রতিটি দেশে। কিছু দেশে কম আর কিছু দেশে বেশি। তবে বিশ্বের কিছু দেশ রয়েছে যেখানে করোনা ভাইরাসের প্রভাব সব থেকে বেশি ক্ষতিকারক। সেই দেশ গুলির তালিকাতে সবার উপরে রয়েছে অ্যামেরিকা। সেখানে মৃত্যুলীলা অব্যাহত। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ প্রান হারাচ্ছে এই দেশে।

আরও পড়ুনঃ প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষা শুরু হল মহিলা বিজ্ঞানীর শরীরে

বিশ্বের কিছু দেশ রয়েছে যেখানকার চিকিৎসা ব্যবস্থা বিশ্বের সব থেকে ভাল চিকিৎসা ব্যবস্থা। সেই প্রথম সারির তালিকাতে জার্মান, অ্যামেরিকা, ইউকে এর মতো উন্নতদেশগুলি। কিন্তু করোনাকে আটকানো যে এতো সহজকাজ নয় তা একেবারে স্পষ্ঠ।

ড্রোনাল ট্রাম্ফের দেশে করোনায় মোট আক্রান্তের সংখ্যা নয় লক্ষ পার হয়েছে। তার সাথে সাথে মৃতের সংখ্যা দেড়ে হয়েছে ৫০ হাজার। পরিসংখ্যান অনুযায়ী প্রায় এক লক্ষ মানুষ সুস্থ্য। আক্রান্তের সংখ্যা কোনো ভাবেই কমাতে পারছে না এই দেশ।

আরও পড়ুনঃ পুলিশ সেজে হত্যালীলা, ১৬ জন মৃত

তবে বিশ্বে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হল আঠাশ লক্ষ। সাড়ে সাত লক্ষ মানুষ সুস্থ্য হয়ে বাড়ি ফিরেছে। আর প্রায় এক লক্ষ নব্বই হাজার মানুষ মারাগেছে। কবে যে এই মহামারীর হাত থেকে মানুষ মুক্তি পাবে তা বিজ্ঞানীদের কাছে এখনও অজানা হয়ে আছে।

প্রথম করোনা ভ্যাকসিনের পরীক্ষা শুরু হল মহিলা বিজ্ঞানীর শরীরে

Coronavirus Vaccine

লন্ডনঃ করোনার ভ্যাকসিনেই একমাত্র মুক্তির পথ এই করোনা ভাইরাসের হাত থেকে। এই বিষয়টি স্পষ্ট সাধারণ মানুষের কাছে। কিন্তু বিজ্ঞানীরা কবে এই রোগের ভ্যাকসিন তৈরি করতে পারবে। সেটাই লাখ টাকার প্রশ্ন। আপাতত আসা দেখাচ্ছে লন্ডনের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়। সেখানে মানবদেহে শুরু হল পরীক্ষা-নিরীক্ষা। বিজ্ঞানীরা আসা করছেন সেপ্টেম্বরের মধ্যেই ফল মিলবে।

আরও পড়ুনঃ করোনা সংক্রমণ বাড়ছে বাংলাদেশেও

আপাতত পরীক্ষা শুরু হয়েছে দু’জনের শরীরে। ৮০০ জন স্বেচ্ছাসেবকের মধ্যে দু’জনকে বেছে নেওয়া হয়েছিল। তবে যার শরীরে প্রথম ইনজেকশন পুশ করা হয়েছে তিনি একজন মহিলা, তাঁর নাম এলিসা গ্র্যানাতো। তিনি নিজেও একজন বিজ্ঞানী। তিনি নিজের ইচ্ছাতেই করোনা বিরুদ্ধে লড়াইতে এগিয়ে এসেছেন। এলিসা জানিয়েছেন যে তিনি আশাবাদী খুব শীঘ্রই তৈরি হবে এই ভ্যাকসিন।

এই পরীক্ষা দু’রকম ভাবে চলবে। ভ্যাকসিন পরীক্ষার অংশগ্রহনকারীদের ভাগ করা হয়েছে দুটি দলে। করোনার পরীক্ষা চলবে এক দলের ওপর এবং অন্য দলটি কে ম্যানিনজাইটিস ভ্যাকসিনের জন্য বেছে নেওয়া হয়েছে। যাদের শরীরের ওপর গবেষণা চালানো হবে, তাদের পর্যবেক্ষণে রাখা হয়েছে।

আরও পড়ুনঃ স্টেট ব্যাঙ্ক এখন ইয়েস ব্যাঙ্কের ৪৮ শতাংশ মালিকানা স্বত্বের অধিকারি

যে ভ্যাকসিনটি অক্সফোর্ড তৈরি করতে চলেছে তার নাম দেওয়া হয়েছে চ্যাডক্স১। জানানো যাচ্ছে যে এটি সাধারণ সর্দি-কাশি-জ্বরের ভাইরাস(যাকে অ্যাডিনোভাইরাস বলা হয়) যা তৈরি হয় শিম্পাঞ্জীদের থেকে। মারণ করোনা ভাইরাসের উপরে থাকা প্রোটিন থেকে বিজ্ঞানীরা নিয়েছেন জিন, তা এমন ভাইরাসের সাথে মেশানো হয়েছে যা কোনো ক্ষতি করবেনা শরীরে। এর থেকেই তৈরি হবে ভ্যাকসিন। এই রসটি ইনজেক্ট করা হচ্ছে মানব দেহে। এই রস মানব দেহে প্রবেশ করে করোনা ভাইরাস স্পাইক প্রোটিন তৈরি করবে। এরাই শরীরে প্রতিরোধ ক্ষমতা থেকে অ্যান্টিবডি তৈরি করে করোনার সাথে লড়াই চালাবে।

স্টেট ব্যাঙ্ক এখন ইয়েস ব্যাঙ্কের ৪৮ শতাংশ মালিকানা স্বত্বের অধিকারি

State bank now own 48 percent YES BANK

একেরপর এক ব্যাঙ্ক গুলি একে অন্যের সাথে যুক্ত হয়েছে বেশ কিছু দিন আগে। সেই সময় স্টেট ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া(SBI) ৪৮.২১ শতাংশ মালিকানা কিনে নেয় ইয়েস ব্যাঙ্কের (Yes Bank)। তার সাথে এইচ ডি এফ সি ও আই সি আই সি আই ব্যাঙ্ক দুজনেই ৭.৯, শতাংশ করে দখল করেছে মালিকানা সত্ত্ব । এছাড়াও বেশ কিছু ব্যাঙ্কের নাম উঠে আসে যারা ইয়েস ব্যাঙ্কের মালিকানা সত্ত্ব নিয়েছে। সেই তালিকাতে রয়েছে অ্যাক্সিস ব্যাঙ্ক (৪.৭৮ শতাংশ), কোটাক মহেন্দ্রা ব্যাঙ্ক (৩.৬১ শতাংশ) এবং বন্ধন ব্যাঙ্ক (২.৩৯ শতাংশ)। এলআইসি নিয়েছে ১.৬৪ শতাংশ।

আরও পড়ুনঃ স্বাস্থ্য কর্মীদের হামলা করলেই হবে ৭ বছরের জেল ও জরিমানা

ইয়েস ব্যাঙ্কের সিইও, রানা কাপুর বর্তমানে কিছু অর্থনৈতিক সমস্যার মধ্যে পরে রয়েছেন। এই রানা কাপুর এক সময় ইয়েস ব্যাঙ্কের শেয়ারগুলিকে হিরার সঙ্গে তুলনা করেছিলেন। তবে বর্তমানে ইয়েস ব্যাঙ্কে তাঁর শেয়ার রয়েগেছে শূন্যতে। অন্যদিকে অশোক কাপুরের স্ত্রী মধু কাপুর ১.১২ শতাংশ শেয়ারের মালিক।

আরও পড়ুনঃ ভারতের পঞ্চাশ শতাংশ ছড়িয়ে পড়লো করোনা

বেশি শেয়ারের অধিকারি হিরা হিসাবে স্টেট ব্যাঙ্ক এই ব্যাঙ্কের ম্যানেজমেন্ট পরিচালনা করছে ও তারা চেষ্টা করছে ব্যাঙ্কের আর্থিক অবস্থা ফিরিয়ে আনার।