সলমন খানের পরিবারে নেমে এলো শোকের ছায়া।

সমগ্র বিশ্ব তথা ভারতবর্ষে করোনার ফলে মানুষ মরছে প্রতিদিন। এক চরম সংকটের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে ভারতের মানুষ। এই সংকটময় সময়ে সলমন খানের পরিবারে নেমে এল শকের ছায়া। মাত্র ৩৮ বছর বয়সী আবদুল্লাহ খান মারা গেলেন। তিনি সম্পর্কে সলমন খানের ভাইপো ছিলেন।

কিছু দিন আগে শ্বাসকষ নিয়ে মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন আবদুল্লাহ। কিন্তু সলমন খান ভাইপো আবদুল্লাহের অসুস্থতার খবর পেয়ে বান্দ্রার লীলাবতী হাসপাতালে ভর্তি করেন। কিন্তু সোমবার তাঁর আর শেষরক্ষা করতে পারে না ডাক্তার।

শ্বাসকস্ট নিয়ে হাসপাতালে যাওয়ায়, মনে করা হয় তিনি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয় তাঁর। যদিও পরিবার সূত্রে জানা যায়, আবদুল্লাহ বহু দিন ধরে ফুস্ফুসের সমস্যায় ভুগছিলেন। জানা যায় হার্টের ও ডায়াবেটিসের সমস্যার কথাও। অবশেষে মৃত্যু হয় তার।

ভাইপোর মৃত্যুতে শোকাহত সলমন খান। সোশ্যাল মিডিয়াতে পুরানো কিছু ছবি পোস্থ করেন “এছাড়া জারিন খান ও ডেইজি শাহ শোক প্রকাশ করেন।

আবদুল্লাহর বডি বিল্ডিংয়ের শখ ছিল। তিনি সলমন খানের ‘বিংস -হিউম্যান ‘ সংস্থার সাথেও যুক্ত ছিলেন। দেশের এই ভয়াবহ বিপদের মুখেই শোকের ছায়া খান পরিবারে।

করোনা মোকাবিলায় বিশাল পরিমাণ অর্থ সাহায্য করল গুগল

Google donates big amount of money

করোনা মোকাবিলায় গুগল এক বিশাল পরিমাণ অর্থ সাহায্যের কথা জানালেন। মোট ৮০০ মার্কিন মিলিয়ন ডলার অর্থাৎ ভারতীয় মূল্যে প্রায় ৬০০০ কোটি টাকা দানের প্রতিশ্রুতি দিল টেক কোম্পানি গুগল। এই অর্থের বেশির ভাগ অংশ বিজ্ঞাপনের কাজে ব্যবহার করবে। মানুষকে সচেতন করবে। তাই গুগল বিশ্ব স্বাস্থ সংস্থার হাতে তুলে দিয়েছে ২৫০ মিলিয়ন ডলার।

গুগল তার নিজস্ব ব্লগ পোস্টের মাধ্যমে শুক্রবার এই তথ্য তুলে ধরে। গুগলের সিইও সুন্দর পিচাই বলেছেন, কোম্পানি নির্দিধায় হু ও বিশ্বব্যাপী সরকারি স্বাস্থ সংস্থা গুলিকে এই করোনা ভাইরাসের ব্যাপারে সমস্থ তথ্য আদান প্রদান করবে। তিনি এও জানান, ক্ষুদ্র ও মাঝারি ব্যবসার জন্য ৩৪০ মিলিয়ন ডলার দান করবেন।

এছাড়াও ত্রান তহবিলে ২ মিলিয়ন ডলার অনুদানের কথাও জানান তিনি।

বর্তমানে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১.৪ লক্ষ্য মানুষ। তাই সমস্ত হাসপাতাল গুলিতে প্রতিরক্ষামূলক মাস্কের বেশি পরিমাণ ঘাটতি দেখা দিয়েছে। তাই গুগল মাস্ক ও গ্লাবস সরবরাহকারী সংখ্যা গুলিকে ২-৩ মিলিয়ন মাস্ক ও গ্লাবস তৈরির জন্য আদেশ দিয়েছে।

কাজ বন্ধ সিনেমার, ২৫ হাজার কর্মীর পরিবারের দায়িত্ব নিলেন সলমন খান

Salman Khan helps 25,000 film workers

করোনা ভাইরাসের হাত থেকে বাঁচার জন্য সারা ভারতে লকডাউন চলছে বেশ কিছু দিন ধরে। এই পরিস্থিতিতে সিনেমা জগতের ২৫ হাজার কর্মী যাদের কে সাধারনত সিনেমার পর্দায় দেখা যায় না, তাদের পরিবারের দায়িত্ব নিলেন সলমন খান। বেশ কিছু বছর আগে সলমন খান একটি সেবা সংস্থা গড়ে তুলেছিলেন। যার নাম বিং হিউম্যান। এই সংস্থার সাহায্যেই সলমন খান এত বড় কাজ করতে চলেছেন।

অন্য দিকে বলিউডের অন্যান্য অভিনেতা ও অভিনেত্রী এই করোনা ভাইরাসের মোকাবিলায় সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন। প্রধানমন্ত্রীর ত্রান তহবিলে ২৫ কোটি টাকা দান করলেন অক্ষয় কুমার

করোনা ভাইরাস নিয়ে উঠে এল নতুন তথ্য

a-group-of-scientists-say-coronavirus-can-loses-your-ability-to-smell-and-taste

করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ব্যাক্তিদের মধ্যে জ্বর, ব্যথা, মাথা যন্ত্রণা, হাঁচি, সর্দি, কাশি ইত্যাদি দেখা যেতে পারে। এই ভাইরাস সংক্রমন ঘটে নাক, মুখ, চোখের মাধ্যমে এবং ফুসফুসে আক্রমণ করে। এই কথা প্রায় কম বেশি এখন সবাই জানেন।

কিন্তু কিছু ক্ষেত্রে দেখা গেছে যে ব্যাক্তি করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত সেই ব্যাক্তি নাকি কোনও গন্ধই পান না। শুনে কিছুটা অদ্ভুত বলে মনে হলেও এমনটাই বলছেন হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের কিছু বিশেষজ্ঞ।

হার্ভার্ড মেডিকেল স্কুলের এই এক দল গবেষকদের মতে, করোনা ভাইরাস প্রধানত মানুষের নাক, মুখ, গলার বিভিন্ন কোষগুলিকে আক্রমণ করে। ফলে আক্রান্ত ব্যাক্তি সঠিকভাবে স্বাদ, গন্ধ গ্রহন করতে পারে না।

এছাড়াও এই ভাইরাস সংক্রমিত হয়ে খাবার ইচ্ছা নষ্ট করে দেয়, মানসিক অবসাদ বাড়িয়ে দেয়।

জানেন অক্ষয় কুমারের কোন ছবি গুলি আসতে চলেছে ২০২০-২১ এ

akshay kumar upcoming movie list 2020 - 2021

সময়ে সময়ে ভালো ভালো মুভি নিয়ে এসেছেন অক্ষয় কুমার। প্রতিবার এক ভিন্ন স্বাদের মুভি। আর তাই অক্ষয় কুমারের ভক্তরা অপেক্ষায় থাকে যে কখন তিনি আবার একটা নতুন ধরনের মুভি আনবে।

২০১৯ সালে অক্ষয় কুমার চারটি মুভি নিয়ে আসেন। আর ওই চারটি মুভিই ছিল সুপারহিট, বক্স অফিসে সাড়া ফেলেছিল সেই সময়।

২০২০ সালে তিনি আসছেন ৩টি মুভি নিয়ে। আর ২০২১ সালে আসতে চলেছে যে মুভি গুলি সেগুলির একটি তালিকা নিচে দেওয়া হল।

MovieReleasing Date
Sooryavanshi postpond
Laxmmi Bomb5 June, 2020
Prithviraj 13 Nov, 2020
Bachchan Pandey22 Jan, 2021
Atrangi Re14 Feb, 2021
Bell Bottom2 April, 2021

কিন্তু করোনা ভাইরাসের কারনে সূর্যবংশী মুভিটি একটু পিছিয়ে দেওয়া হয়েছে। এই মুভিটি ২৭ মার্চ মুক্তি পাওয়ার কথা ছিল। আর কোনো তারিখ না জানা গেলেও ২০২০ সালের ঈদে মুক্তি পেতে চলেছে লক্ষ্মীবোম্ব।

কলকাতার ভবানীপুরের বহুতলে ভয়াবহ আগুন

fire-at-bhawanipur-south-city-galaxy-apartment

করোনার আতঙ্কে এমনিতেই মানুষ গৃহবন্দি হয়ে রয়েছে ২৪ মার্চ থেকে। তারই মাঝে উঠে এল আগুনের আতঙ্ক। কলকাতার ভবানীপুরের এক বহুতলের ১৬ তলাতে এক ভয়াবহ আগুন লাগার খবর পাওয়া গেছে। এই বহুতলের নাম সাউথ সিটি গ্যালাক্সি অ্যপার্টমেন্ট।

ঘটনাস্থলে পৌঁছায় দমকলের ১০ টি ইঞ্জিন। উচ্চতা বেশি হওয়ার কারনে হাইড্রোলিক ল্যাডারও আনা হয়েছে। বহুতলের বাসিন্দাদের নিরাপদে সরিয়ে এনেছে দমকল কর্মীগন।

এই ঘটনাটি ঘটে সকাল ১০ টা নাগাদ। তারপর ১৬ তলা থেকে কালো ধোঁয়া বেরিয়ে আসতে দেখে সেখানকার নিরাপত্তা রক্ষীরা সময় নষ্ট না করেই খবর দেয় দমকলে।

প্রথমে আসে পাঁচটি ইঞ্জিন। পরে আরও পাঁচটি ইঞ্জিন আনে দমকলবাহিনী। এখনও পর্যন্ত আগুন নিয়ন্ত্রণে আসেনি।

রাজ্যে করোনায় দ্বিতীয় মৃত্যু, ৪৪ বছরের কালিম্পঙবাসী

coronavirus-in-west-bengal

রাজ্যে মৃত্যু হল দ্বিতীয় করোনা আক্রান্ত ব্যাক্তির। জানা যায় রবিবার মাঝ রাতে কালিম্পঙের এক ৪৪ বছরের মহিলা উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে মারা যান। রাজ্যে করোনা আক্রান্ত হওয়ার কারনে মৃত ব্যাক্তির সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ২।

সমগ্র রাজ্যে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২১। তবে এই সংখ্যা বাড়বে বলে সঙ্কা প্রকাশ করছেন ডাক্তার মহল।

১৬ মার্চ গায়ে জ্বর নিয়ে উত্তরবঙ্গ মেডিক্যাল কলেজে ভর্তি হন এই মহিলা। করোনা ভাইরাসের কিছু লক্ষণ থাকার কারনে সাথে সাথে পরীক্ষা শুরু হয়। পরীক্ষা করে দেখা যায় তিনি করোনায় আক্রান্ত। এর পরই তার চিকিৎসা শুরু হয়। কিন্তু কোনো কিছুতেই ডাক্তাররা সাড়া পাচ্ছিলেন না এই মহিলার। অবশেষে রবিবার রাত ২ টো নাদাগ তার মৃত্যু হয়।

জানা যায় কিছু দিন আগে তিনি চেন্নাই গিয়েছিলেন। সেখান থেকে আসার পর থেকেই জ্বর এ ভুগছিলেন তিনি। প্রাথমিক ভাবে তিনি চিকিৎসা করাচ্ছিলেন, কিন্তু তাতে কোনো উপশম হয় না।

জেনে নিন করোনা ভাইরসের ৮ টি অজানা তথ্য

প্রতি দিন হাজার হাজার মানুষ আক্রান্ত হচ্ছে করোনা ভাইরাসে। আর এই সংখ্যা বেড়ে চলেছে সময়ের সাথে। আবার এও দেখা গেছে প্রচুর মানুষ এমন আছে যারা এই ভাইরাসে আক্রান্ত কিন্তু কোনো রকম অসুস্থতা অনুভব করছে না।

এই রোগের ভয়াবহতা দেখা দেয় ডিসেম্বর মাসে। সালটা ছিল ২০১৯। চিনের হোয়ান প্রদেশে প্রথম বার দেখা যায় এই ভাইরাস।

প্রায় ৩ মাস সমাপ্ত হতে যায় কিন্তু এমন অনেক কিছু আছে যার উত্তর এখনও বিজ্ঞানীদের কাছে নেই এই ব্যাপারে। বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষার মধ্যে দিয়ে সময় কাটছে তাদের। তবুও তারা অনেক প্রশ্নের উত্তর খোঁজার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।

চলুন জেনে নিন করোনা ভাইরাসের ৮ টি অজানা তথ্য

কিছু সাধারন প্রশ্ন উঠে আসে যা আমাদের জানা খুবই দরকার। আতঙ্ক প্রতিটি মানুষের মধ্যে বাসা বেঁধেছে। এই প্রশ্ন গুলি সাহায্য করতে পারে।

১। এই করোনা ভাইরাস কোথা থেকে এলো?

এই ভাইরাস প্রথম চিনের হোয়ান প্রদেশের একটি বাজার থেকে দেখা দেয়। সময়টা ছিল ২০১৯ সালের ডিসেম্বর মাসে।

করোনা ভাইরাসকে সরকারিভাবে বলা হয়ে থাকে Sars-CoV-2 । যেটি বাদুরের দেহে পাওয়া ভাইরাসের মতো সমান। যদিও এই ভাইরাসটি বাদুরের দেহ থেকে অন্য অজানা কোনো প্রানীর দেহে প্রবেশ করে আর সেখান থেকে মানুষের দেহে সংক্রমিত হয়।

people are scared for coronavirus

২। কত মানুষ এই করোনা ভাইরাসের দ্বারা আক্রান্ত?

এটি খুবই সাধারন একটি প্রশ্ন আবার খুবই গুরুত্বপূর্নও বটে।

হু এর তথ্য অনুযায়ী, এখনো পর্যন্ত সমগ্র বিশ্ব জুড়ে ৬ লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত। কিন্তু প্রচুর এমন মানুষও আছে যাদের দেহে করোনা ভাইরাস আক্রমণ করেছে কিন্তু তার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি। সব ক্ষেতে যে মানুষ অসুস্থ হয়ে পড়বে তা নয়।

৩। কতোটা ক্ষতিকর এই রোগ?

বর্তমানে দেখা গেছে যে এই রোগে আক্রান্ত ব্যাক্তিদের মধ্যে মাত্র ১ শতাংশ মানুষ মারা যাচ্ছে। তবে ৮০ বছর ঊদ্ধে মানুষের মৃত্যু হার প্রায় ২১ শতাংশ।

৪। এই রোগের লক্ষণ কী?

প্রধান যে লক্ষণগুলি দেখা যাচ্ছে সেগুলি হল, জ্বর, শুকনো কফ। এর পরে দেখা যায় গলা বেথা, মাথা ব্যথা, ডায়ারিয়া কিছু ক্ষেত্রে দেখা গেছে। কিছু রোগীর ক্ষেতে হালকা শর্দি ছাড়া আর কিছু দেখা যায়নি।
গবেষণায় দেখা গেছে কিছু মানুষ এমনও আছে যাদের শরীরে এই জীবাণু দেখা যেছে কিন্তু সেরকম ভাবে কোনো গুরুতর লক্ষণ দেখা যায়নি।

৫। এই জীবাণু ছড়ানোর পিছনে বাচ্ছাদের ভূমিকা কী?

বাচ্চাদের এই ভাইরাস আক্রমন করে। তাদের মধ্যে সামান্য সর্দি দেখা দেয়। তবে অন্যান্য বয়সের মানুষের থেকে এদের মৃত্যু তুলনামুলকভাবে কম।

তবে বাচ্চাদের থেকে সব থেকে বেশিভাবে এই জীবাণু ছড়ায়। কারণ একটি বাচ্চা একই সাথে অনেক মানুষের সংস্পর্ষে থাকে, বিশেষকরে ভারতের মতো দেশে যেখানে একান্নবর্তী পরিবারে বাচ্চারা বড় হয়ে ওঠে। তবে এখনও পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের কাছে স্পষ্ট নয় যে কিভাবে এই ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ছে।

coronavirus tests

৬। কিছু মানুষের দেহে অনেকগুলি লক্ষণ দেখা দিচ্ছে কিভাবে?

Covid-19 সাধারনত একটি সাধারন সংক্রমণ। কিন্তু দেখা গেছে ২০ শতাংশ মানুষের ক্ষেতে ব্যাপারটা সাধারন থাকছে না।

কারণ কোনও ব্যক্তির ইমিউন সিস্টেমের অবস্থা কেমন আছে তার উপর এই রোগের প্রভাব নির্ভর করে ও আবার কিছু জিনগত কারণও থাকতে পারে।এই রোগ ধরা পড়ার পর ভালো ভাবে যত্নের প্রয়োজন থাকে ও কিছু সাবধানতা অবলম্বন করতে বলা হয়ে থাকে।

৭। এই রোগ কত দিন পর্যন্ত থাকবে, দ্বিতীয়বার কি হতে পারে?

সেই ভাবে বিজ্ঞানীদের চোখে না পড়লেও সাধারন কিছু জিনিস তাদের চোখে ধরা পড়েছে। তবে এই রোগটি যেহেতু ৩ মাস আগে এসেছে তো সেইভাবে কোনো দির্ঘমেয়াদী ফলাফল ডাক্তাররা বলতে পারছেন না এই মুহুর্তে। কিছু ভুল তথ্যও মানুষের কাছে যাচ্ছে। যেমন নাকি এই রোগে সেরে ওঠা মানুষরা আবার আক্রান্ত হচ্ছে। এই তথ্য একেবার ভুল।

Courtesy: WHO

৮। এই ভাইরাস কি পরিবর্তন হচ্ছে?

ভাইরাস নিজেকে সব সময় পরিবর্তন করতে থাকে। তবে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে দেখা গেছে তাদের জেনেটিক কোড এক থাকে।

দেখা গেছে, বেশি দিন ধরে ভ্যাকসিন প্রয়োগ পরার ফলে সেই ভ্যাকসিন আর কাজ করে না।

জেনে নিন কোন দেশে কতো মানুষ করোনার আওতায় এসেছে

world-infected-by-coronavirus

সমগ্র বিশ্বে মহামারি রুপ ধারন করেছে এই করোনা ভাইরাস। এই ভাইরাসের কারনে মানুষের জীবন ধারনের ধরন বদলে গেছে বেশ কিছু দিন ধরে। বিশ্বের প্রান্তরে প্রান্তরে লকডাউন চালু থাকায় গৃহবন্দী জীবনযাপন করছে মানুষ। এই পরিস্থিতির হাত থেকে বাঁচার এক মাত্র রাস্তাই হল এই গৃহবন্দী জীবনকে মেনে নিয়ে কিছু দিন এই ভাবেই পার করা। কারন যত দিন না এই রোগের কোনো সঠিক চিকিৎসা ব্যবস্থা বা ঔষুধ না আবিষ্কার হয় তত দিন এই ভাবেই নিজেকে সুরক্ষিত রাখা সম্ভব।

চিত্রঃ হু

ভারতের বর্তমান পরিস্থিতি যে খুব একটা ভানো নেই তা সংক্রমনের মাত্রা দেখে বোঝা যেতে পারে। এক বার চোখ বুলিয়ে নিন এই তথ্য তালিকার উপরে। তাহলে আপনার কাছে সব কিছু স্পষ্ট হয়ে যাবে।

এই তালিকাতে ১০০ টি দেশ, জায়গার নাম, করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা, মৃতের সংখ্যা ও এই রোগ থেকে সেরে ওঠা মানুষের সংখ্যা তুলে ধরা হয়েছে।

Country, OtherCasesDeathsRecovered
USA123,7742,2293,231
Italy92,47210,02312,384
China81,4393,30075,448
Spain73,2355,98212,285
Germany57,6954338,481
France37,5752,3145,700
Iran35,4082,51711,697
UK17,0891,019135
Switzerland14,0762641,595
Netherlands9,7626393
S. Korea9,5831525,033
Belgium9,1343531,063
Austria8,27168225
Turkey7,40210870
Canada5,65560508
Portugal5,17010043
Norway4,032237
Australia3,96916170
Brazil3,9041446
Israel3,6191289
Sweden3,44710516
Czechia2,6631111
Ireland2,415365
Malaysia2,32027320
Denmark2,201651
Chile1,909661
Luxembourg1,8311840
Ecuador1,831483
Japan1,69352404
Poland1,638187
Pakistan1,4951229
Romania1,45237139
Thailand1,388697
Russia1,264449
Saudi Arabia1,203437
South Africa1,187131
Finland1,167910
Indonesia1,15510259
Philippines1,0756835
Greece1,0613252
India9872587
Iceland9632144
Panama901174
Mexico848164
Singapore8023198
Argentina7451972
Dominican Republic719283
Diamond Princess71210597
Slovenia684910
Peru6711616
Serbia6591042
Croatia657545
Estonia645120
Colombia608610
Qatar590145
Egypt57636121
Hong Kong5604112
New Zealand514156
Iraq50642131
Bahrain4764265
UAE468252
Algeria4542931
Lebanon412830
Hungary4081334
Armenia407130
Morocco4022512
Lithuania39471
Ukraine35695
Bulgaria331711
Andorra30831
Latvia3051
Uruguay3041
Costa Rica29523
Slovakia2922
Taiwan283230
Tunisia27882
Bosnia and Herzegovina27868
Jordan246118
North Macedonia24143
Kuwait235
Moldova23122
Kazakhstan228116
San Marino224226
Burkina Faso2071121
Albenia1971031
Reunion1831
Azerbaijan182415
Cyprus179515
Vietnam17921
Faeroe Islands15554
Oman15223
Malta1492
Ghana14152
Senegal13018
Brunei120125
Cuba11934
Venezuela119239
Sri Lanka11519
Afghanistan11042
Honduras11013

বিজ্ঞানী মহলের কথায়, এই পরিস্থিতিতে লকডাউনই হল এক মাত্র পথ এই ১৩০ কোটি মানুষের প্রান বাঁচানোর। নাহলে পরিস্থিতি হাতের বাইরে চলে যেতে পারে বলে মতে করছেন তারা।

পরিসংখ্যান অনুযায়ী সমগ্র বিশ্বে মৃতের সংখ্যা ৩০ হাজার ছাড়িয়েছে। ভারতে মৃতের সংখ্যা ২৫ ও বাংলাদেশে এখনও পর্যন্ত ৫ জন মৃতের খবর পাওয়া যাচ্ছে।

তথ্য সংগ্রহঃ worldometer

বিশ্ব জুড়ে কনডোমের টান করোনার জেরে

condom

বিশ্ব জুড়ে হাহাকার. পাওয়া যাচ্ছে না কনডম. সারা বিশ্ব জুড়ে কনডম পাওয়া যাচ্ছে না। করোনা ভাইরাসের করণে বিশ্বের বেশিরভাগ জায়গা, কারখানা, দোকান-বাজার সব বন্ধ হয়েছে বেশ কিছু দিন আগেই। তার ফলেই এই ভাবে ঘাটতি দেখা দিয়েছে বিশ্বজুড়ে। মালয়েশিয়ার Karex Bhd একাই বিশ্বের পাঁচ ভাগের এক ভাগ কনডম উৎপন্ন করে। এই কোম্পানি বগত কিছু দিন ধরে ১ টি ও কনডম উৎপন্ন করেনি। মালয়েশিয়া জুড়ে ৩ টি কারখানা রয়েছে এই প্রতিষ্ঠানের। কিছু দিন ধরে এই ৩ টি কারখানা বন্ধ থাকায় একটিও কনডম তৈরী হয়নি।

সংস্থার কথায় প্রায় ১০০ মিলিয়ন কনডমের ঘাটতি দেখা দিয়েছে এই কয়েক দিনের মধ্যেই।

কোম্পানি কাজ চালিয়ে যাওয়ার অনুমতি পেলেও মাত্র ৫০% কর্মচারী নিয়ে শুক্রবার কোম্পানি আরম্ভ করার কথা হয়।

মালয়েশিয়ার মতো দেশে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ২১৬১ জন এবং ২৬ জন মৃত। ফলে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত লকডাউন থাকবে গোটা দেশ।

অন্যান্য কনডম উৎপাদনকারী দেশগুলির মধ্যে রয়েছে চীন। যেখানে এখনো পর্যন্ত সমস্ত কারখানা বন্ধ করে রাখা হয়েছে. তারপরে রয়েছে ইন্ডিয়া, থাইল্যান্ড যেখানেও লকডাউন থাকার জন্য কোনো কনডম প্রস্তুত হচ্ছেনা।

তবে এই ঘাটতি তাড়াতাড়ি পূর্ণ হয়ে যাবে বলে ধারণা শিল্প মহলের।